Skip to content

মুক্তিযুদ্ধবিরোধীরা যেন নির্বাচনে অংশ নিতে না পারে, ইসিতে দাবি সম্প্রীতি বাংলাদেশের

মুক্তিযুদ্ধবিরোধীরা যেন নির্বাচনে অংশ নিতে না পারে, ইসিতে দাবি সম্প্রীতি বাংলাদেশের

বৈঠক শেষে সম্প্রীতি বাংলাদেশের সভাপতি পীযুষ বন্দোপাধ্যায় বলেন, জাতীয় নির্বাচন এলেই সংখ্যালঘু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় যারা বিশ্বাস করে, তাদের কপালে ভাঁজ পড়ে। আমরা এটা আর দেখতে চাই না। ইসিকে বলেছি শক্তভাবে দায়িত্ব পালন করবেন। সম্প্রীতি বাংলাদেশের মতো অরাজনৈতিক সংগঠনগুলো সহায়তা করবে। ইসি সহমত পোষণ করেছে।

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধীরা যাতে অংশ নিতে না পারে, সে উদ্যোগ নিতে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কাছে দাবি জানিয়েছে সম্প্রীতি বাংলাদেশ নামের সামাজিক সংগঠন। একই সঙ্গে তারা ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের আহ্বানও জানানো হয়েছে।

মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় এমন চারটি দাবি জানান সংগঠনটির নেতারা।

লিখিত দাবিগুলো মধ্যে রয়েছে, ধর্মভিত্তিক প্রচারণা এবং তার ফলে সৃষ্ট পরিকল্পিত সাম্প্রদায়িক প্ররোচণা বন্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ, মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী এবং একাত্তরের পরাজিত শক্তি যাতে আসন্ন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে না পারে সে ব্যাপারে কার্যকরী ভূমিকা গ্রহণ, ধর্মীয় সংখ্যালঘু এবং শান্তিপ্রিয় নির্বাচনমুখী সাধারণ ভোটারদের নিরাপত্তা নিশ্চিত ও সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঝুকিপূর্ণ অঞ্চল সমূহ চিহ্নিত করে নির্বাচনপূর্ব, নির্বাচনকালীন এবং নির্বাচনোত্তর সহিংসতা রোধে পর্যাপ্ত ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ।

বৈঠক শেষে সম্প্রীতি বাংলাদেশের সভাপতি পীযুষ বন্দোপাধ্যায় বলেন, জাতীয় নির্বাচন এলেই সংখ্যালঘু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় যারা বিশ্বাস করে, তাদের কপালে ভাঁজ পড়ে। আমরা এটা আর দেখতে চাই না। ইসিকে বলেছি শক্তভাবে দায়িত্ব পালন করবেন। সম্প্রীতি বাংলাদেশের মতো অরাজনৈতিক সংগঠনগুলো সহায়তা করবে। ইসি সহমত পোষণ করেছে।

তিনি বলেন, ২০০১ সালের মতো ব্ল্যাক অক্টোবর আর বাংলাদেশে দেখতে চাই না। যে ভয়াবহতা, নৃসংসতা, যে অত্যাচার প্রায় ৭১ সালকে মনে করিয়ে দেয়। সে জিনিসগুলো আমরা বাংলাদেশ থেকে চিরতরে সরিয়ে দিতে চাই। যারা মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতা করেছে তাদের সরকারে এবং কোনো আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়ায় দেখতে চাই না।

কীসের আতঙ্কে ভুগছেন- এমন প্রশ্নে তিনি আরও বলেন, আমরা ঘর পোড়া গরুর মতো, অতীতের ভয় থেকে এসেছি। সাবধানের কোনো মার নেই।

কী সহায়তা করতে পারেন ইসিকে এই প্রশ্নের জবাবে এই নাট্যকার বলেন, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের কোনো কাজ যদি তারা করেন আমরা আমাদের ভলেন্টিয়ার সহযোগিতা দেব। ২০০১ সালে আমরা সারা দেশ ঘুরে নির্যাতন, পাশবিকতার চিহ্ন দেখেছি, বর্বরতার চিহ্ন দেখেছি। সেটা যেন আর না হয়।

তিনি আরও বলেন, আমরা অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চাই। আমরা চাই এদেশে বৃহত্তর জনগোষ্ঠী নির্বাচনমুখী হোক এবং এবারের ভোটারদের মধ্যে তরুণা বেশি। তাদের আমরা নির্বাচনমুখী করতে বলেছি। এজন্য কেবল ইসি নয়, দলগুলোরও একটা ভূমিকা আছে। সামাজিক সংগঠন, মিডিয়ার ভূমিকাও ফেলে দেয়া যায় না।

পীযুষ বন্দোপাধ্যায় বলেন, ভোটের উৎসব যদি তরুণদের মধ্যে ফিরিয়ে আনতে পারি তবে অচিরেই আমরা একটি খোলসমুক্ত নির্বাচন প্রক্রিয়া পাবো। ভয় করছি যারা মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী তাদের নিয়ে। যদি বিএনপির ভেতরে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী থেকে থাকে আমরা দেখেছি যাদের প্রগতিশীল মনে করেছি তাদের ওখানেই নির্যাতন বেশি হয়েছে, তাই যদি আশঙ্কা করে থাকি সেটা সমীচীন।

ইসির সঙ্গে বৈঠকে সম্প্রীতি বাংলাদেশের ১৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল অংশ নেয়। আর পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনাররা এবং ইসি সচিবসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ইসি সচিব মো. জাহাংগীর আলম বলেন, তারা চারটি দাবি জানিয়েছেন। এগুলোর মধ্যে যেগুলোতে কমিশনের পক্ষে কাজ করার সুযোগ রয়েছে সেগুলো নিয়ে তারা কাজ করবেন। অপরদিকে অন্য যে দপ্তরগুলো এর সঙ্গে সম্পৃক্ত রয়েছে, তাদেরকে এ বিষয়টি অবহিত করে এই বিষয়টা আইনানুগভাবে যেটুকু করানো সেটুকুর জন্য নির্বাচন কমিশন উদ্যোগ গ্রহণ করবেন।

তিনি বলেন, তাদের প্রস্তাবগুলোর মধ্যে নতুন ভোটারদের ভোটদানে উৎসাহিত করা, ধর্মীয় সম্প্রীতি বজায় রাখা, নির্বাচনোত্তর ধর্মীয় উন্মাদনা রোধে ব্যবস্থাগ্রহণ এরকম চারটি বিষয় তারা অবহিত করেছে। তার আলোকে কমিশন তাদের আস্বস্ত করেছে আইনানুগভাবে যতটুকু করা সম্ভব ততটুকু কমিশন করবে।

সহিংসতা নিয়ে এতো শঙ্কা কেন-এমন প্রশ্নে সচিব বলেন, এটা তারা বলতে পারবে। আমাদের এখান থেকে এটা স্পষ্ট যে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের আইন-শৃঙ্খলার পরিস্থিতি আমার দৃষ্টিতে, কমিশনের দৃষ্টিতে শান্তিপূর্ণ আছে। উদ্বগ্ন হওয়ার মতো এখানে কোনো পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি এবং কমিশন তা মনে করছে না। পরবর্তীতে যদি পরিস্থিতি উদ্ভব হয়, কমিশন আইনানুগ সব ব্যবস্থা নেবে।

আরও পড়ুন:
বাংলাদেশে কীভাবে নির্বাচন তা ঠিক করবে দেশটির জনগণ: ভারত
আল্টিমেটাম দিয়ে লাভ হবে না: ওবায়দুল কাদের
ম্যান্ডেট না পাওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশের নির্বাচনে সম্পৃক্ত হবে না জাতিসংঘ



বার্তা সূত্র

সর্বাধিক পঠিত

সর্বশেষ সংবাদ