Skip to content

কোনো ধর্মের মানুষই বর্তমান সরকারের আমলে নিরাপদ নয় : আলাল

কোনো ধর্মের মানুষই বর্তমান সরকারের আমলে নিরাপদ নয় : আলাল


মুসলিম, হিন্দু, খ্রিস্টান, বৌদ্ধ- কোনো ধর্মের মানুষই এই সরকারের আমলে নিরাপদ নয় বলে মন্তব্য করেছেন বিএন‌পির যুগ্ম মহাস‌চিব সৈয়দ মোয়া‌জ্জেম হো‌সেন আলাল।

রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের ৪২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

আলাল বলেন, আওয়ামী লীগের যখন প্রয়োজন হয় তখন ভারতে গিয়ে তিলক চন্দন পড়ে। আবার যখন প্রয়োজন হয় তখন ইসলাম বিক্রি করে দেয়। আবার প্রয়োজনে ইসলামী দলগুলোর সাথে ঐক্য করে। আসলে এদের আমলে কোনো ধর্মই নিরাপদ নয়। আলেমরা তো এই সরকারের আমলে নিরাপদ নয়। আলেমরা তো সবচেয়ে বেশি নির্যাতনের শিকার। অন্য ধর্মের লোকও এই সরকারের আমলে নিরাপদ নয়।

তিনি বলেন, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান সংবিধানে বিসমিল্লাহ সংযোজন করেছেন। এ ছাড়াও বিএনপির আমলে হাতেগোনা দু-একটি ছাড়া সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন হয়নি। ১৯৭২ থেকে ৭৫ আওয়ামী লীগের সময় দেখবেন যত হিন্দুর সম্পত্তি ঘরবাড়ি দখল করেছে, তার প্রায় ৯০ শতাংশ লোক হচ্ছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও মন্ত্রী। যারা ভয়ে ভারতে গিয়েছিল তাদের প্রত্যেকের বাড়িঘর দখল করেছে আওয়ামী লীগের নেতারাই।

তিনি আরো বলেন, রমনা কালী মন্দির ভেঙেছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। হিন্দুদের দেবী মূর্তি ভাঙা, দেবীর সামনে থেকে স্বর্ণ অলঙ্কার চুরি করা সব কিছু করেছে আওয়ামী লীগের নেতারা। অথচ আজ তারা (আওয়ামী লীগ) ধর্মের নামে ব্যবসা করে সফল হয়েছে। এই রাজনীতি বিএনপির করার প্রয়োজন নেই। এই রাজনীতি জিয়াউর রহমান করে নাই। বেগম খালেদা জিয়া করেননি। আমরাও করবো না, এটা সবার মাথার মধ্যে রাখতে হবে।

যুবদলের সাবেক এই সভাপতি বলেন, রামুতে বৌদ্ধ মন্দির ভেঙেছে কারা? এই আওয়ামী লীগের লোকেরা। গাইবান্ধায় সাঁওতাল পল্লীতে আগুন লাগিয়ে ছিল এই আওয়ামী লীগের লোকেরা এবং জ্যাকেট পরা ডিবির লোকেরা। একটা ঘটনারও কি বিচার হয়েছে? হয়নি। ঢাকা মহানগরে তাজিয়া মিছিলে বোমা হামলা হয়েছে। তার বিচার হয়েছে? হয়নি।

আলাল আরো বলেন, মিরপুরের কালসীতে বস্তি দখলের জন্য আগুন লাগিয়ে দিয়ে নয়জন মানুষকে পুড়িয়ে আঙ্গার করে দিয়েছে। বিচার হয়েছে? হয়নি। শবে বরাতের রাতে যুবক, ছাত্রদের ডাকাত আখ্যা দিয়ে পুলিশ, আওয়ামী লীগের লোকদেরকে লেলিয়ে দিয়ে পিটিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে তার বিচার হয়েছে? হয়নি। সুতরাং মুসলিম, হিন্দু, খ্রিস্টান, বৌদ্ধ- যে যেখানে আছেন এই সরকারের আমলে নিরাপদ নয়।

ওলামা দলের আহ্বায়ক অধ্যক্ষ মাওলানা শাহ নেছারুল হকের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব অধ্যক্ষ মাওলানা নজরুল ইসলাম তালুকদারের সঞ্চালনায় এ সময় উপস্থিত ছিলেন─ বিএনপির মহাস‌চিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, আব্দুস সালাম ও নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মো. রহমতুল্লাহ প্রমুখ।



বার্তা সূত্র