Skip to content

৬ মার্কিন কংগ্রেসম্যানের চিঠি প্রত্যাখ্যান

৬ মার্কিন কংগ্রেসম্যানের চিঠি প্রত্যাখ্যান

ঢাকা: বাংলাদেশের সংখ্যালঘু সংখ্যা কমে আসা নিয়ে ৬ মার্কিন কংগ্রেসম্যানের চিঠির তথ্য মিথ্যা এবং বাস্তবতা বিবর্জিত বলে মন্তব্য করে সেই চিঠি প্রত্যাখ্যান করেছে সেকুলার সিটিজেন বাংলাদেশ সংগঠনটি নেতারা বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কাছে গত ১৭ মে লেখা এক চিঠিতে দেশটির ছয়জন কংগ্রেসম্যান বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের অবস্থা নিয়ে যেভাবে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রদান করেছেন তা দেখে বেশ আতঙ্কিত ও হতবাক হয়েছেন বাংলাদেশের নাগরিক বিভিন্ন ধর্মীয় সম্প্রদায়ের নেতারা।

সোমবার (১২ জুন) সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের মাওলানা মোহাম্মদ আকরাম খাঁ হলে সংগঠনটি আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সেই চিঠি প্রত্যাখ্যানের কথা জানান সেকুলার সিটিজেন বাংলাদেশের আহ্বায়ক ব্যারিষ্টার তাপস কান্তি বল।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাসের কাছে পাঠানো এক ইমেইলে সেকুলার সিটিজেনস বাংলাদেশের সদস্যরা দাবি করেছেন যে, মার্কিন কংগ্রেস সদস্যদের উল্লিখিত চিঠিটি পক্ষপাত দুষ্ট এবং সংখ্যালঘুর সংখ্যা কমানোর বিষয়ে ইতিহাস বিকৃত করে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রদান করেছেন।  

উল্লেখ্য, কংগ্রেস সদস্যদের চিঠিতে দাবি করা হয়েছে যে, শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশে হিন্দুদের সংখ্যা অর্ধেক হয়ে গেছে। পাশাপাশি খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের মানুষও একইভাবে নির্যাতনের শিকার হচ্ছে বলে সেখানে উল্লেখ করা হয়।

কিন্তু সেখানে উল্লেখ করা হয়নি যে, বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতার বাইরে থেকেও বিগত ২০০১-২০০৬ সালে তাদের নেতৃত্বে দেশের বিভিন্নস্থানে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন করা হয়। এছাড়াও এই জোটের নেতৃত্বাধীন সরকারের আমলেও সংঘটিত সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিষয়ে কোনো আলোচনাই করেননি এই কংগ্রেসম্যানেরা, যার বিষয়ে সাহাবুদ্দিন চুপ্পু কমিশনের রিপোর্টে পরিষ্কারভাবে উল্লেখ করা হয়েছে।

‘কংগ্রেসম্যানেরা এই চিঠিতে গত এক দশকে হিন্দু ধর্মীয় শারদীয় দুর্গা পূজার সংখ্যা সামগ্রিকভাবে সারা বাংলাদেশে বৃদ্ধি পাওয়ার বিষয়টি বিবেচনায় নেননি। বিএনপি-জামায়াত সরকারের ধর্মীয় ও জাতিগত সম্প্রদায়ের মেধাবী তরুণেরা সরকারি চাকরি পাওয়ার ক্ষেত্রে বৈষম্যের শিকার হয়ে চাকরি পাননি। একইভাবে, যারা তখন সরকারি চাকরিতে ছিলেন তারা বিভিন্নভাবে তাদের ধর্মীয় ও জাতিগত পরিচয়ের কারণের প্রোমোশনসহ বিভিন্ন অধিকার পাওয়ার ক্ষেত্রে বৈষম্যের শিকার হয়েছে। ‘

সংবাদ সম্মেলনে আরও বলা হয়, বর্তমান সরকারের সময়ে ধর্মীয় ও জাতিগত সম্প্রদায়গত পরিচয় ভুলে গিয়ে যোগ্যতা ও মেধার সঠিক মূল্যায়নের মাধ্যমে সকলের সরকারি চাকরি করার অধিকার এবং পেশাগত সুবিধা লাভের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে- এই বিষয়গুলো মার্কিন কংগ্রেসম্যানরা তাদের বিবেচনায় নেননি।

ব্যারিষ্টার তাপস কান্তি বল আরও বলেন, মনে রাখা উচিত যে, ১৯৭৫ সালের পরে বাংলাদেশের সংবিধানের অসাম্প্রদায়িক চরিত্র হরণ করা হয়েছিল; সংবিধানের সেই অসাম্প্রদায়িক চরিত্র কিছুটা হলেও এই সরকার ফিরিয়ে এনেছে দ্বাদশ সংশোধনীর মাধ্যমে। আমরা সকলেই জানি, নির্বাচন আসলেই ধর্মীয় ও জাতিগত সম্প্রদায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। কংগ্রেসম্যানদের উচিত এবারের নির্বাচনে ধর্মীয় ও জাতিগত সম্প্রদায়গুলোকে নিরাপত্তা প্রদানের জন্যে সরকারকে উৎসাহিত করা।  

উল্লেখিত, ৬ জনের অভিযোগের ভিত্তিতে কিছু করা হলে তা হবে বাস্তবতা বিবর্জিত এবং মানবাধিকার ও বিচার প্রার্থনার নামে প্রতারণা হবে। সেই সঙ্গে বিভিন্ন ধর্মের নেতারা মনে করেন এই চিঠির মাধ্যমে জামায়াত-বিএনপির সময়কার সংখ্যালঘু নির্যাতন ও অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের দায়মুক্তির সংস্কৃতিকে উৎসাহিত করা হচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ বুদ্ধিস্ট ফেডারেশনের সুনন্দ প্রিয় ভিক্ষু, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বিভাগের অধ্যাপক ড. সুবর্ণ বডুয়া, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পালি ও বুদ্ধিস্ট স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. বিমান বডুয়া।

বাংলাদেশ সময়: ১৫১৭ ঘণ্টা, জুন ১২, ২০২৩
এইচএমএস/এসএম



বার্তা সূত্র

সর্বাধিক পঠিত

সর্বশেষ সংবাদ