উত্তর পূর্ব ভারতে বাজপেয়ীর প্রথম মূর্তি উন্মোচন

২৫ ডিসেম্বর উত্তর পূর্ব ভারতে  অটল বিহারী বাজপেয়ীর মূর্তি উন্মোচন করবেন নীতিন গাডকারি, অসমের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর পূর্ব ভারত ভারতের প্রাক্তন (প্রয়াত) প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীর প্রথম প্রতিমূর্তি প্রতিষ্ঠা লাভ করবে। ২৫ ডিসেম্বর ইষ্ট ওয়েস্ট করিডোরের জিরো পয়েন্টে ১৫ লক্ষ টাকা ব্যয় সাপেক্ষে ১৩ ফুট উচ্চতার বাজপেয়ীর মূর্তি উন্মোচন হবে।

আসামের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সনোওয়ালের সাথে প্রতিমা উদ্বোধনের জন্য উপস্থিত থাকবেন কেন্দ্রীয় সড়ক ও পরিবহনমন্ত্রী নীতিন গাডকারিসহ বেশ কয়েকজন নেতা। কেন্দ্রীয় পরিবহনমন্ত্রী নীতিন গাডকারি অনুষ্ঠানের মুখ্য অতিথি হিসেবে যোগ দেবেন।

শিল্পী চন্দ্র শেখর দাস কলকাতায় তাঁর স্টুডিওতে চার মাসের মধ্যে এই মূর্তিটি তৈরি করেছেন। শিলচরের সাংসদ ডাঃ রাজদীপ রায়ের পরিকল্পনায় এবং প্রায় ১১ হাজার বিজেপি সমর্থকের সমর্থনে প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীর মূর্তিটি স্থাপন করার মহান উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন করার দিকে অগ্রসর হওয়া গিয়েছে।

শিলচরের সাংসদ নিজে এই মূর্তির জন্যে ১ লক্ষ টাকা প্রদান করেছেন।

তিনি বলেন, “বরাক উপত্যকার মানুষ প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে ভীষণ সংবেদনশীল। তিনি একাধিকবার এখানে এসেছেন। বাজপেয়ীও ১৯৮৪ সালে আমার বাড়িতে তিন দিন অবস্থান করেছিলেন”।

মূর্তি উন্মোচন ছাড়াও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গাডকারি আসাম বিশ্ববিদ্যালয় শিলচরের সমাবর্তনেও অংশ নেবেন এবং সেই সাথে অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি কর্মসূচিতে।

বলা বাহুল্য, এটি শুধুমাত্র শিলচরের নয়, গোটা উত্তর পূর্ব ভারতের কাছে আনন্দের বিষয় এবং অবশ্যই দেশের জন্যে একটি গর্বের বিষয় হতে চলেছে।

যেহেতু করোনা মহামারির প্রকোপ এখনো কমেনি, ফলে পুরো অনুষ্ঠানটি কোভিড প্রোটোকল মেনেই সম্পন্ন করা হবে।

২৫ ডিসেম্বর, ২০২০ অটল বিহারী বাজপেয়ীর ৯৬’তম জন্মদিন। ১৯২৪ সালের ২৫ ডিসেম্বর গোয়ালিয়রে কৃষ্ণ বিহারী বাজপেয়ী ও কৃষ্ণা দেবীর ঘরে জন্ম হয় অটল বিহারী বাজপেয়ীর।

তাঁর ঠাকুরদা পণ্ডিত শ্যামলাল বাজপেয়ী উত্তরপ্রদেশের বাতেশ্বরের গ্রাম থেকে গোয়ালিয়রের মোরেনায় চলে আসেন। বাবা কৃষ্ণ বিহারী ছিলেন গ্রামের স্কুলের শিক্ষক ও কবি ।

কবিতার শখ সেখান থেকেই তৈরি হয়েছে অটলের মধ্যে।

আর্য সমাজের যুব শাখা আর্য কুমার সভা থেকে সমাজসেবায় অংশ নেওয়া শুরু বাজপেয়ীর। ১৯৪৪ সালে বাজপেয়ী আর্য সমাজের সাধারণ সম্পাদক নিযুক্ত হন।

১৯৩৯ সালে যোগ দেন আরএসএসে। ১৯৪৭ সালে পূর্ণ সময়ের আরএসএস কর্মী হন তিনি। তাঁর এক একটি কবিতা আজও মুখে মুখে উচ্চারিত হয়। জীবনমুখী সব দর্শন।

সংবাদ সূত্র


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।