১৭ থেকে ২৬ মার্চ ঢাকায় সভা-সমাবেশ না করা এবং চলাচল সীমিত রাখার অনুরোধ আইজিপির

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্‌যাপন অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া বিদেশি রাষ্ট্রপ্রধান ও অতিথিদের নিরাপত্তার স্বার্থে নগরে সভা-সমাবেশ না করার অনুরোধ জানিয়েছে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ।  পাশাপাশি ১৭ থে‌কে ২৬ মার্চ পর্যন্ত ঢাকাবাসীকে চলাচল সীমিত রাখার অনুরোধ করেছেন তিনি।

সোমবার রাজধানীর রাজারবাগ বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস ফাউন্ডেশনের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইজিপি। ওই সময়ে নগরবাসীর উদ্দেশ্যে বক্তব্য দেওয়ার সময়ে এই অনুরোধ জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে ১২৪ জন মেধাবী শিক্ষার্থীকে ১৩ লাখ ৬ হাজার টাকা বৃত্তি প্রদান করা হয়। এতে পুলিশ সদর দপ্ত‌রের অতিরিক্ত আইজিপি মঈনুর রহমান চৌধুরী, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়, বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ও নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলমসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বেনজির বলেন, আমরা কয়েক দিন পরেই বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্‌যাপন করতে যাচ্ছি। সেই সঙ্গে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী মুজিব শতবর্ষ উদ্‌যাপন করতে যাচ্ছি। করোনার সময়ে, আমাদের সঙ্গে পাঁচটি দেশের রাষ্ট্রপ্রধান যুক্ত হবে। এটি আমাদের জন্য সম্মানের বিষয়। ইতোমধ্যে ঢাকা মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে ঢাকাবাসীকে অনুরোধ করা হয়েছে ১৭ মার্চ থেকে ২৬ মার্চ এই ১০ দিন শহরে প্রয়োজন না হলে চলাচল সীমিত রাখতে। ভিভিআইপিদের নিরাপত্তা প্রদান করা আমাদের রাষ্ট্রীয় কর্তব্য, দেশের কর্তব্য, জনগণের দায়িত্ব। যারা আসছেন তারা ১৮ কোটি মানুষের মেহমান। আমরা চাই জনগণ আমাদের এই মেহমানদের নিরাপত্তা প্রদানে সহায়তা করবে।

আইজিপি বলেন, ইতোমধ্যে এই ১০ দিন দেশবাসীকে আমাদের সহায়তা করার জন্য বলা হয়েছে। এই সময়ে যেকোনো প্রকার সভা-সমিতি করা থেকে বিরত থাকার জন্য ঢাকা মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছ। প্রয়োজন না হলে নগরবাসীকে চলাচল সীমিত রাখার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে। এর মধ্যে একটি বিসিএস পরীক্ষা (১৯ মার্চ) রয়েছে। আমরা সব মিলে নিরাপত্তার জন্য জনগণের সমর্থন চাই।

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email