Skip to content

সোম বিকালেই পুরুলিয়ার পথে মমতা, অপেক্ষায় জঙ্গলমহলের জনতা

সোম বিকালেই পুরুলিয়ার পথে মমতা, অপেক্ষায় জঙ্গলমহলের জনতা

নিজস্ব প্রতিনিধি: সামনেই লোকসভার নির্বাচন(General Election 2024)। সেই ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণা করা না হলেও খুব শীঘ্রই তা ঘোষিত হবে। হয়তো এপ্রিলের প্রথম দিক থেকেই ভোট গ্রহণের পালাও শুরু হয়ে যাবে। এই অবস্থায় আবারও জেলা সফরে বার হচ্ছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়(Mamata Banerjee)। এদিন অর্থাৎ ২৬ ফেব্রুয়ারি বিকালেই তিনি যাচ্ছেন পুরুলিয়ায়(Purulia)। আগামিকাল অর্থাৎ ২৭ ফেব্রুয়ারি তাঁর সভা থাকছে পুরুলিয়ার বুকে। সেই সভা সেরে তিনি চলে যাবেন বাঁকুড়া(Bankura) জেলার মুকুটমণিপুরে। রাতে সেখানেই থাকবেন। ২৮ তারিখ তিনি সভা করবেন খাতড়ায়। সেই সভা সেরেই তিনি চলে যাবেন ঝাড়গ্রামে। সেখানেই হবে রাত্রিবাস। পরেরদিন অর্থাৎ ২৯ ফেব্রুয়ারি তিনি ঝাড়গ্রাম(Jhargram) স্টেডিয়ামে সভা করে কলকাতায় ফিরবেন। নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে তাঁর এই সফরে মেদিনীপুর না থাকলেও খুব শীঘ্রই আরও একবার জেলা সফরে বার হবেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই তালিকায় ঠাঁই পাবে পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর। তবে সেই সফরের দিনক্ষণ এখনও ঠিক হয়নি।

মুখ্যমন্ত্রীর এই সফরের দিকে তাকিয়ে আছে জঙ্গলমহলের(Jungalmahal) ৩ জেলার মানুষ। কেননা মুখ্যমন্ত্রী আসা মানেই জেলার মানুষের বাড়তি প্রাপ্তি। এবারেও জেলা সফরে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকার প্রকল্প উদ্বোধন এবং শিলান্যাস করবেন। সেই সঙ্গে লক্ষাধিক মানুষের হাতে তুলে দেবেন রাজ্য সরকারের একের পর এক জনকল্যাণমূলক প্রকল্পের সুবিধা। তবে লোকসভা নির্বাচনের আগে মুখ্যমন্ত্রীর এই সফর সব থেকে বেশি তাৎপর্যপূর্ণ হয়ে উঠতে চলেছে রাজনৈতিক কারণের জন্য। ২৪’র ভোটের আগে জঙ্গলমহলে এসে মমতা বিজেপিকে বিতাড়িত করতে কী বার্তা দেন সেই দিকেই সবাই তাকিয়ে আছেন। উনিশের ভোটে বিজেপি(BJP) পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, বিষ্ণুপুর এবং ঝাড়গ্রাম লোকসভা কেন্দ্র জিতে নিয়েছিল। কিন্তু একুশের ভোটেই দেখা গিয়েছে, সেই দাপট তাঁরা আর ধরে রাখতে পারেনি। ৩ জেলার আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকায় ধস নেমে গিয়েছে গেরুয়া শিবিরে। পঞ্চায়েত নির্বাচনেও দেখা গিয়েছে ৩ জেলাতেই কার্যত দাঁত ফোটাতেই পারেনি পদ্মশিবির। তাই ৩ জেলার ৪টি লোকসভা কেন্দ্রই ২৪’র ভোটে দখল করতে তৎপর হয়েছে তৃণমূল(TMC)। সেই লড়াইয়ের জন্য তৃণমূল সুপ্রিমো কোন রণনীতি দল ও দলের নেতাকর্মী তথা সমর্থকদের কাছে তুলে ধরেন সেই দিকেই তাকিয়ে থাকবেন সকলে।

মুখ্যমন্ত্রীর ৩ জেলা সফরের জন্য ৩ জেলাতেই ইতিমধ্যেই প্রশাসনিক আধিকারিকদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। ৩ জেলাতেই তাঁর এই সফর ঘিরে প্রশাসনিক স্তরে প্রস্তুতি তুঙ্গে উঠেছে। সমস্ত আধিকারিকদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি পর্ব চলছে। জঙ্গলমহলে মুখ্যমন্ত্রীর জনপ্রিয়তা তুঙ্গে উঠেছে তাঁর হাত ধরে চালু হওয়া লক্ষ্মীর ভান্ডার, জয় জোহর, কন্যাশ্রী, স্বাস্থ্যসাথী, খাদ্যসাথী, কৃষকবন্ধু, বাংলা শস্য বিমা যোজনার মতো প্রকল্পগুলির জন্য যা জঙ্গলমহলের গরীব মানুষদের জীবনে পরিবর্তন এনেছে। এর প্রমাণ মিলেছে গত বছর হয়ে যাওয়া পঞ্চায়েত নির্বাচনে। সেখানে কুড়মিদের সমর্থন ছাড়াও ৩ জেলারই জেলা পরিষদ, সব পঞ্চায়েত সমিতি ও বেশির ভাগ গ্রাম পঞ্চায়েতে জয়ী হয়েছে তৃণমূল। ভোট প্রাপ্তির হারও বেড়েছে। ৩ জেলাতেই ব্যাপক পরিমাণে উন্নয়নের কাজ হয়েছে। রাজ্য সরকারের বিভিন্ন জনমুখী প্রকল্পের সুবিধাও সাধারণ মানুষ পাচ্ছেন। তাই জঙ্গলমহলের মানুষ মুখ্যমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত।

সংবাদ সূত্র