সোনারগাঁওয়ে ১মার্চ থেকে শুরু হচ্ছে মাসব্যাপী কারুশিল্প মেলা

চতুর্দশ শতকের মসলিন খ্যাত বাংলার ঐতিহ্যবাহী রাজধানী সোনারগাঁওয়ে অবস্থিত বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনে  ১ মার্চ থেকে শুরু হচ্ছে মাসব্যাপী লোক কারুশিল্প মেলা ও লোকজ উৎসব-২০২১।

এ উপলক্ষে গত বুধবার বিকেলে লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের লাইব্রেরির সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য, জাতীয় পার্টির অতিরিক্ত মহাসচিব, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির সভাপতি লিয়াকত হোসেন খোকা।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- সোনারগাঁও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আতিকুল ইসলাম। বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের পরিচালক ড. আহম্মদ উল্ল্যাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- সোনারগাঁও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোস্তফা মুন্না, সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক এডভোকেট শামসুল ইসলাম ভূঁইয়া, সোনারগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম, লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক রবিউল ইসলাম, সোনারগাঁও প্রেস ক্লাবের সভাপতি অসিত কুমার দাস, সাধারণ সম্পাদক আল আমিন তুষার, পিরোজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মাসুদুর রহমান মাসুম, লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের গবেষণা কর্মকর্তা একে আজাদ, সাংবাদিক হাসান মাহমুদ রিপন, শাহাদাত হোসেন রতন, রবিউল হুসাইন, মাজারুল ইসলাম, মনির, পনির হোসেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে বক্তারা লোকজ মেলার প্রাণ ফিরিয়ে আনতে ও দর্শনার্থীর সমাগম আগের তুলনায় যাতে বেশি হয় সেই ব্যাপারে বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। এছাড়াও মেলায় বিদেশি পণ্য বিক্রি বন্ধ, কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের সংযোগ সড়ক মেলা শুরু হওয়ার আগে সংস্কার, ভালো মানের শিল্পী আনা, মেলা প্রাঙ্গণে খাবারের মান ভালো করা, সৌন্দর্য বর্ধন, উপজাতীয় অনুষ্ঠান আগের তুলনায় বৃদ্ধি করাসহ বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।

আবহমান গ্রাম বাংলার হাজার বছরের লালিত ঐতিহ্য, শিল্প-সাহিত্য, সংস্কৃতি, কৃষ্টি, আচার-আচরণ, গ্রাম্য অসংখ্য বিলীয়মান হস্ত কারুশিল্প প্রদর্শনী ও বিক্রির মাধ্যমে জনগণের পরিচয় ঘটনোর জন্য বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন প্রতিবছর লোকজ মেলা ও লোকজ উৎসবের আয়োজন করে থাকে।

বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের পরিচালক ড. আহম্মদ উল্ল্যাহ জানান, এবারের লোকজ মেলায় লোক সমাগম অন্যান্য বছরের তুলনায় বেশি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। মেলায় নিরাপত্তার স্বার্থে .ব্যাব, পুলিশ, আনসারসহ আইন শৃৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা মোতায়েন থাকবে।

অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা বলেন, লোকজ মেলা আমাদের লোক সংস্কৃতির ঐতিহ্য বহন করে চলছে। বাংলার লোক সংস্কৃতিকে পূনরুজ্জীবিত রাখতে এ মেলার গুরুত্ব অপরিসীম। তাই এই মেলাকে সফল করতে সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন। তিনি বলেন, মেলা শুরু হওয়ার আগেই লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের সংযোগ সড়ক সংস্কার করা হবে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email