সাসুলোকে হারিয়ে চতুর্থ স্থানে উঠে এলো জুভেন্টাস, রোমার সাথে ড্র করেছে ইন্টার

রোববার সিরি-এ লিগে রোমার সাথে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ২-২ গোলে ড্র করে পয়েন্ট হারিয়েছে ইন্টার মিলান। এতে করে তিন পয়েন্ট এগিয়ে সিরি-এ টেবিলের শীর্ষে থেকে সপ্তাহ শেষ করার সুযোগটি দারুনভাবে কাজে লাগিয়েছে ইন্টারের নগর প্রতিদ্বন্দ্বী এসি মিলান। এদিকে ইন্টারের এই ড্রয়ে সুবিধা পেয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জুভেন্টাসও। গতকাল ১০ জনের সাসুলোকে ৩-১ গোলে উড়িয়ে দিয়ে টেবিলের চতুর্থ স্থানে উঠে এসেছে তুরিনের জায়ান্টরা। শনিবার এসি মিলান ২-০ গোলে পরাজিত করেছিল তুরিনোকে। মিলানের চেয়ে তিন পয়েন্ট পিছিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ইন্টার, তারও তিন পয়েন্ট দুরে থেকে তৃতীয় স্থানে রয়েছে রোমা।
এবারের মৌসুমে প্রথমবারের মত টানা তিন ম্যাচে জয় তুলে নিয়ে রোমার থেকে মাত্র এক পয়েন্ট পিছিয়ে চতুর্থ স্থানে রয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। গত সপ্তাহে এসি মিলানের ২৭ ম্যাচের অপরাজিত থাকার রেকর্ড ভেঙ্গে দিয়েছিল জুভেন্টাস। কাল ম্যাচ শেষে জুভ কোচ আন্দ্রে পিরলো বলেন, ‘লিগের এই পর্যায়ে এসে ধারাবাহিকতা বজায় রাখাটা জরুরী। আজকের জয়টা দারুন ছিল। কারন তা না হলে বুধবার সান সিরোর বিপক্ষে ম্যাচটা অকার্যকর হয়ে যেত।’
এদিকে রোমে টানা দ্বিতীয় ম্যাচে জয়বিহীন থাকা এন্টোনিও কন্টের ইন্টারের জন্য পুরো সপ্তাহটাই ব্যর্থতায় পরিণত হলো। আগের ম্যাচে সাম্পদোরিয়ার কাছে ২-১ গোলের পরাজয়ে অনেকটাই পিছিয়ে পড়েছিল কন্টের দল। কালকের ড্রয়ে মিলানকে আর ধরা হলো না। ২০১০ সালের পর প্রথমবারের মত সিরি-এ লিগের শিরোপা জয়ের স্বপ্নে বিভোর হয়ে ওঠা ইন্টার আগামী সপ্তাহে সান সিরোতে জুভেন্টাসের মোকাবেলা করবে। ম্যাচটির ফলাফল এবারের মৌসুমের অন্যতম টার্নিং পয়েন্ট হয়ে উঠতে পারে।
রোমার স্তাদিও অলিম্পিকোতে ১৭ মিনিটে লোরেঞ্জো পেলেগ্রিনি স্বাগতিকদের এগিয়ে দেন। বিরতির পর ১১ মিনিটের মধ্যে স্ক্রিনিয়ারের হেডে ইন্টার সমতা ফেরায়। সাত মিনিট পর দুর্দান্ত কার্লিং শটে আচরাফ হাকিমি ইন্টারকে এগিয়ে দেন। ম্যাচের সময় যতই গড়িয়েছে রোমান চাপ সহ্য করার ক্ষমতা ততই হারিয়ঠে ইন্টার। তারই ধারাবাহিকতায় গঞ্জালো ভিয়ারের ক্রস থেকে হেডের সাহায্যে রোমার হয়ে সমতা ফেরান ডিফেন্ডার মানচিনি।
কন্টে বলেন, ‘ম্যাচের শেষের দিকে আমরা বেশ নার্ভাস হয়ে পড়েছিলাম যা ম্যাচের ফলাফলে প্রভাব ফেলেছে। আমরা ম্যাচটি শেষ করার সুযোগ পেয়েছিলাম। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা কাজে লাগাতে পারিনি।’
রোমা কোচ পাওলো ফনসেকা বলেছেন, ‘দ্বিতীয়ার্ধে আমরা ১৫-২০ মিনিট যেভাবে খেলেছি তাতেই ম্যাচে ভাগ্য গড়ে গিয়েছিল।’
তুরিনে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা বেশ দাপুটের সাথে জয় নিশ্চিত করেছে। যদিও ইনজুরির কারনে প্রথমার্ধেই তাদের হারাতে হয়েছে পাওলো দিবালা ও ওয়েস্টন ম্যাককিনিকে। পেশীর ইনজুরির কারনে মিডফিল্ডার ম্যাককিনি ১৮ মিনিটে মাঠ থেকে বেরিয়ে গেলে তার স্থলাভিষিক্ত হন ওয়েলস তারকা রামসে। বিরতির তিন মিনিট আগে বাম হাঁটুর ইনজুরিতে পড়ে মাঠত্যাগ করেন দিবালা। ইতোমধ্যেই করোনা পজিটিভ হওয়ায় দলের বাইরে রয়েছেন এ্যালেক্স সান্দ্রো, হুয়ান কুয়াড্রাডো ও মাথিয়াস ডি লিট। ফরোয়ার্ড ফেডেরিকো চিয়েসাও বাম পায়ের গোঁড়ালির ব্যাথার কারনে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন। তাকে ট্যাকল করতে গিয়ে সাসুলো মিডফিল্ডার পেড্রো ওবিয়াং লাল কার্ড দেখলে বিরতির পর থেকে পুরোটা সময়ই ১০জন নিয়ে খেলতে হয়েছে সফরকারীদের।
প্রথমার্ধ গোলশুন্য থাকার পর ৫০ মিনিটে ডেডলক ভাঙ্গেন ডিফেন্ডার ডানিলো। যদিও সাত মিনিট পর গ্রেগরি ডেফ্রেলের দুর্দান্ত ফিনিশিংয়ে সমতা ফেরায় সাসুলো। ম্যাচ শেষের আট মিনিট আগে গিয়ানলুকা ফ্রাবোত্তার ক্রস থেকে মৌসুমের প্রথম গোল করেন রামসে। ইনজুরি টাইমে জুভেন্টাসের হয়ে তৃতীয় গোলটি করেন ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। মৌসুমে এটি তার ১৫তম লিগ গোল।
পিরলো বলেছেন, ‘এটা সত্যিই কঠিন একটি ম্যাচ ছিল। এগিয়ে গিয়েও আমাদের ম্যাচটি ধরে রাখতে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। যদিও কিছুটা এলোমেলো হলেও শেষ পর্যন্ত তিন পয়েন্ট অর্জনই গুরুত্বপূর্ণ।’
এই নিয়ে টানা পাঁচ ম্যাচে তৃতীয় পরাজয়ে টেবিলের সপ্তম স্থানে নেমে গেছে সাসুলো।
স্পেজিয়ার কাছে সপ্তাহের মাঝামাঝিতে ঘরের মাঠে হতাশাজনক পরাজয়ের পর গতকাল শেষ মুহূর্তের গোলে উদিনেসকে ২-১ গোলে পরাজিত করে জয়ের ধারায় ফেরার পাশাপাশি টেবিলের ষষ্ঠ স্থানে উঠে এসেছে নাপোলি। ১৫ মিনিটে পেনাল্টি থেকে নাপোলিকে এগিয়ে দেন অধিনায়ক লোরেঞ্জো ইনসিগনে। ২৭ মিনিটে উদিনেসের হয়ে সমতা ফেরান কেভিন লাসাগনা। শেষ মিনিটে টিমেউ বাকাইয়োকোর গোলে নাপোলি জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।