Skip to content

সন্দেশখালিতে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন, আজই রাষ্ট্রপতিকে রিপোর্ট পেশ

সন্দেশখালিতে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন, আজই রাষ্ট্রপতিকে রিপোর্ট পেশ

সন্দেশখালি, 23 ফেব্রুয়ারি: জাতীয় তফসিলি কমিশন, জাতীয় মহিলা কমিশন ও জাতীয় উপজাতি কমিশনের পর এবার জাতীয় মানবাধিকার কমিশন ৷ সন্দেশখালির পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে শুক্রবার সেখানে পৌঁছে গেল কেন্দ্রীয় এই সংস্থার 6 সদস‍্যের প্রতিনিধি দল ৷ এই মুহূর্তে সন্দেশখালির গ্রামে গ্রামে ঘুরে সেখানকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলছেন কমিশনের সদস্যরা ৷ নারী নির্যাতনের পাশাপাশি, মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা সম্পর্কেও খোঁজখবর নিচ্ছেন কমিশনের সদস্যরা ৷ পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনীর নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে সন্দেশখালিতে প্রবেশ করেছেন তাঁরা ৷ আজই দিল্লি ফিরে সন্দেশখালি নিয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে রিপোর্ট পেশ করতে পারেন কমিশন ৷

শুক্রবার সকাল সাড়ে ন’টা নাগাদ জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের প্রতিনিধিদল ধামাখালি বাজারে এসে পৌঁছয় ৷ সেখান থেকে ফেরিঘাটে পুলিশের একটি লঞ্চে নদী পেরিয়ে ওপারে যান তাঁরা ৷ এরপর টোটোয় কমিশনের সদস্যরা প্রথমেই সন্দেশখালি থানায় গিয়ে জেলার পুলিশ সুপার হোসেন মেহেদি রহমানের সঙ্গে বৈঠক করেন ৷ সন্দেশখালি-কাণ্ডে এখনও পর্যন্ত নারী নির্যাতনের কতগুলি অভিযোগ জমা পড়েছে ? তার মধ্যে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ ক’টি ? অভিযোগ পেয়ে পুলিশ কী ব্যবস্থা নিয়েছে ? কতজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে ? যাবতীয় তথ্য জানতে চাওয়া হয়েছে বলে সূত্রের খবর ৷

পুলিশ সুপারের সঙ্গে বৈঠক শেষ করে কমিশনের সদস্যরা ফের টোটোয় চেপে গ্রামে ঢোকেন ৷ এরপর সর্দারপাড়া-সহ একাধিক গ্রামে নিয়ে মহিলা-পুরুষ সকলের সঙ্গে কথা বললেন কমিশনের সদস্যরা ৷ মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগগুলি খতিয়ে দেখেন কমিশনের সদস্যরা ৷ অভিযোগগুলি নথিভুক্ত করা হয়েছে ৷

এর আগে গত 15 ফেব্রুয়ারি সন্দেশখালিতে এসে গ্রামের নির্যাতিতা মহিলাদের সঙ্গে কথা বলেছিলেন জাতীয় তফসিলি কমিশনের সদস্যরা ৷ কমিশনের চেয়ারম্যান অরুণ হালদারের সামনে শাহজাহান বাহিনীর বিরুদ্ধে অত‍্যাচারের অভিযোগ করেছিলেন গ্রামের মহিলারা ৷ হাড়হিম করা সেই সমস্ত অভিযোগ শুনে রীতিমতো স্তম্ভিত হয়ে গিয়েছিলেন কমিশনের সদস্যরা ৷ এরপর দিল্লি ফিরে রাইসিনা হিলসে সন্দেশখালির ভয়াবহ পরিস্থিতি নিয়ে রিপোর্ট জমা দেন কমিশনের সদস্যরা ৷ এরপর জাতীয় মহিলা কমিশনের চেয়ারপার্সনের নেতৃত্বে একটি দল সন্দেশখালি পৌঁছায় ৷ সন্দেশখালি থেকেই রাষ্ট্রপতি শাসনের পক্ষে সওয়াল করেছিলেন কমিশনের চেয়ারপার্সন রেখা শর্মা ৷

গতকাল ফের সন্দেশখালির বাস্তব পরিস্থিতি চাক্ষুস করেন জাতীয় তফসিলি উপজাতি কমিশনের ভাইস চেয়ারম্যান অনন্ত নায়েক-সহ তিন সদস্যের প্রতিনিধিদল ৷ সেখানকার আদিবাসী সমাজ সঙ্গে কথা বলেন তাঁরা ৷ পরে অনন্ত নায়েক জানান, জমি দখল, নারী নির্যাতন-সহ তাঁদের কাছে 23টির বেশি অভিযোগ এসেছে ৷ আর সেই অভিযোগের কেন্দ্রে রয়েছে প্রভাবশালী এক রাজনৈতিক নেতা ৷ ফলে স্বশাসিত এই তিন জাতীয় সংস্থার পর জাতীয় মানবাধিকার কমিশনও সেই পথে হাঁটে কিনা, এখন সেটাই দেখার বিষয় ৷

প্রসঙ্গত, এর আগে সন্দেশখালি-কাণ্ডে স্বতঃপ্রণোদিতভাবে রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছিল জাতীয় মানবাধিকার কমিশন ৷ সন্দেশখালিতে যে সব অভিযোগ উঠেছে, তাতে উদ্বেগ প্রকাশ করে রাজ‍্যের মুখ্যসচিব ভগবতীপ্রসাদ গোপালিকা এবং ডিজি রাজীব কুমারকে নোটিশও পাঠানো হয়েছিল ৷ সেই নোটিশে রাজ্য প্রশাসনের দুই শীর্ষকর্তার থেকে চার সপ্তাহের মধ্যে জবাব তলব করে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন ৷ তবে, তার আগেই সন্দেশখালি পৌঁছে গেলেন কমিশনের সদস্যরা ৷

আরও পড়ুন:

  1. সন্দেশখালি যাওয়ার আগেই গ্রেফতার লকেট, নিয়ে যাওয়া হচ্ছে লালবাজারে
  2. সন্দেশখালিকাণ্ডে বাড়ছে উদ্বেগ, বঙ্গে কড়া নির্দেশিকা নির্বাচন কমিশনের
  3. রেশন দুর্নীতির কালো টাকা বাংলাদেশের ব্যবসায় বিনিয়োগ শেখ শাহজাহানের, দাবি ইডির

বার্তা সূত্র