Skip to content

সংখ্যালঘু পরিবারের জমি দখলের ‘হুমকি’ বিএনপি নেতা’র

সংখ্যালঘু পরিবারের জমি দখলের ‘হুমকি’ বিএনপি নেতা’র

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: কুমিল্লার মুরাদনগরের মধ্যনগর দাস বাড়িতে এসে জমি দখলের হুমকির অভিযোগ উঠেছে। মুরাদনগর থানা বিএনপি নেতা অরূপ নারায়ণ পোদ্দার (পিংকু) ও মোস্তফা বাহিনীর ১৫-২০ জন সদস্য সদলবলে এসে দাস বাড়িতে হুমকি দেন বলে অভিযোগ করেছেন ওই পরিবারের সদস্য পল্টন দাস।

এ ঘটনার সময় পল্টন দাস বাড়িতে না থাকলেও তাকে ফোন করে হুমকি দেন। এতে পল্টন দাসসহ পুরো পরিবারের সদস্যরা আতঙ্কে দিন পার করছেন। ঘটনার বিষয়ে মুরাদনগর থানায় গিয়ে জিডি করতে চাইলে অজ্ঞাত কারণে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ।

পল্টন দাস ঘটনার বিষয়ে বলেন, ‘অরূপ নারায়ণ পোদ্দার (পিংকু) বিএনপি’র একজন প্রভাবশালী নেতা। তিনিসহ আরও কয়েকজন গত ৩ ফেব্রুয়ারি বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে বাড়িতে গিয়ে সন্ত্রাসী কায়দায় কথা বলতে শুরু করেন। বাড়িতে বৃদ্ধ মা ও ছোট ভাই থাকায় ভয়ে তারা বাইরে বের হননি। তারা দাস বাড়িতে গিয়ে জমিসংক্রান্ত জটিলতা রয়েছে এবং সেই জমি তাদের নামে লিখে দিতে বলেন। জমি লিখে না দিলে তা দখল করে নেবেন বলে হুমকি দেন।’

পল্টন দাস অভিযোগ করে বলেন, ‘অরূপ নারায়ণ পোদ্দার যাদের নিয়ে গিয়েছিলেন সেই মোস্তফা বাহিনী এলাকায় সন্ত্রাসী বাহিনী হিসেবে চিহ্নিত। তারা প্রথমে জমিতে জটিলতা আছে এমন অভিযোগে দখলে নেন। এরপর তারা মীমাংসার নামে ওই জমি মালিকের কাছ থেকে লিখে নেন অথবা মোটা অংকের টাকা আদায় করেন।’

পল্টন দাস বলেন, “আমাকে মোবাইল ফোনে অরূপ নারায়ণ হুমকি দিয়ে বলেন, ‘জমি লিখে দিতে বলো তোমার ভাইকে।” তখন আমি জানতে চেয়ে বলি, ‘আপনি আমার বাড়িতে কেন গিয়েছিলেন? তখন অরুপ বলেন, গিয়েছিলাম তোমার বাড়িতে, তুমি বুইঝা নিও।’

জানা যায়, অরূপ নারায়ণ পোদ্দার (পিংকু) বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির একজন ও মোস্তফা বাহিনীর প্রধান। মোস্তফা স্থানীয় জমি জমার সব সমস্যা সমাধান করে থাকেন। তাদের ভয়ে এলাকার অনেকেই কথা বলতে নারাজ।

ভুক্তভোগী পল্টন দাস বলেন, ‘বিষয়টি প্রাথমিকভাবে মুরাদনগর থানা পুলিশকে অবগত করা হয়েছে। কিন্তু ওসি অজ্ঞাত কারণে আমার অভিযোগ না নিয়ে থানার কম্পিউটার অপারেটরকে ডেকে জিডি লিখে দিতে বলেন। এরপর পাঁচ দিন পার হলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ।’

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপি নেতা অরূপ নারায়ণ পোদ্দার সারাবাংলাকে বলেন, ‘আমি পল্টন দাসের ছোট ভাইয়ের কাছ থেকে জমি কিনেছি। কিন্তু, তিনি লিখে দিচ্ছেন না। জমি যাতে লিখে দেয় সেজন্য তাদের বাড়ি গিয়েছিলাম।’ আপনি কেন জমি-জমা, বাড়িঘর দখলের হুমকি দিয়েছেন? উত্তরের তিনি বলেন, ‘আমার সঙ্গে লোকজন ছিল। তবে তারা কেউ কিছু বলেননি।’

জমি বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে পল্টন দাস বলেন, ‘জমি বিক্রির বিষয়ে আমি কিছু জানি না। উনি জোর করে আমাদের জমিতে ঢোকার চেষ্টা করছে। জমিতে ঢুকলেই আশেপাশে সব দখল করে নেবে। তার কারণে বহু মানুষের জমিজমা এভাবে হারিয়ে গেছে। বাড়িতে এসে হুমকি দিয়ে গেছে, এতে আমার পরিবারের সদস্যরা আতঙ্কে রয়েছে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মুরাদনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে পল্টন দাস আমার কাছে এসেছিল। সামান্য বিষয় নিয়ে মামলা না করে জিডি করতে বলেছিলাম। যেদিন এসেছিলেন সেদিন কম্পিউটারে সমস্যা ছিল। এরপর আর তিনি আসেননি। এর দুই তিন দিন পর আরেকজন ফোন করেছিলেন। তখন আমি তাকে ভুক্তভোগীকে পাঠিয়ে দিতে বলেছি। ভুক্তভোগী এলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

সারাবাংলা/ইউজে/পিটিএম



বার্তা সূত্র