Skip to content

শ্রীলংকার নৌবাহিনী ১০০ জনেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীকে উদ্ধার করেছে

শ্রীলংকার নৌবাহিনী ১০০ জনেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীকে উদ্ধার করেছে

শ্রীলংকার নৌবাহিনী ভারত মহাসাগরীয় ঐ দ্বীপের উত্তর উপকূল থেকে পালিয়ে যাওয়া ১০৪ জন রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করেছে। সোমবার এক কর্মকর্তা বলেন, মুসলিম সংখ্যালঘুরা মিয়ানমারে সহিংসতা এবং বাংলাদেশের শরণার্থী শিবিরগুলিতে কষ্ট থেকে রক্ষা পেতেই এই কাজ করছে।

অনেক রোহিঙ্গা প্রতি বছর তাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশসমুহ, যেমন মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়ায় ভাঙা নৌযানে করে পৌঁছানোর চেষ্টা করে। ক্যাম্পের অবস্থার অবনতি এবং মিয়ানমারে গত বছর সামরিক অভ্যুত্থানের কারণে এই সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে।

নৌবাহিনীর মুখপাত্র ক্যাপ্টেন গায়ান বিক্রমাসুরিয়া বলেন, নৌকাটি প্রথম শ্রীলঙ্কা নৌবাহিনী সনাক্ত করে। তখন এটি উপকূল থেকে ৩.৫ নটিক্যাল মাইল দূরে ছিল। রবিবার রাতে নৌযানটিকে উত্তর বন্দরে নিয়ে যাওয়ার জন্য একটি অনুসন্ধান ও উদ্ধার অভিযান শুরু করা হয়।

রয়টার্সকে বিক্রমাসুরিয়া বলেন, ” এই লোকদের পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। পুলিশ তাদের ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে উপস্থাপন করবে, যিনি পরবর্তী পদক্ষেপের সিদ্ধান্ত নেবেন।“

নৌবাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়, ১০৪ জন মিয়ানমারের নাগরিককে একটি ছোট ট্রলারে পাওয়া গেছে। তারা মিয়ানমার থেকে ইন্দোনেশিয়ার দিকে যাচ্ছিল। উদ্ধারের সময় রুক্ষ সমুদ্রে ইঞ্জিনের সমস্যা দেখা যায়।

বিক্রমাসুরিয়া জানান, উদ্ধারকৃতদের মধ্যে ৩৯ জন নারী ও ২৩ জন নাবালক ছেলে মেয়ে আছে। ৮০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ, একজন মা ও তার দুই সন্তান ছোটখাটো অসুস্থতায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

২০১৮ সালে মিয়ানমারে সামরিক অভিযানের পর ৭ লাখ ৩০ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা মুসলিম প্রতিবেশী বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। সামরিক অভিযানে গণহত্যা ও ধর্ষণের ঘটনা ঘটে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন।

মানবাধিকার গোষ্ঠী ও গণমাধ্যমগুলো বেসামরিক নাগরিকদের হত্যা ও গ্রাম পোড়ানোর ঘটনা নথিভুক্ত করেছে।

সূত্র: ভয়েজ অব আমেরিকা