Skip to content

শেখ হাসিনার প্রচেষ্টায় ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ৩৩৪ উপজেলা

প্রধানমন্ত্রী ৯ আগস্ট দেশের আরও ১২টি জেলা ও ১৩২টি উপজেলায় চতুর্থ ধাপে আরও ২২ হাজার ১০১টি গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারের মাঝে বিনামূল্যে জমিসহ নবনির্মিত স্বপ্নের নীড় স্থায়ী ঠিকানার বাড়ি হস্তান্তর কার্যক্রম উদ্বোধন এবং ১২টি জেলার সব উপজেলাসহ মোট ১২৩টি উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করেন।

এ সময় তিনি বলেন, দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য কাজ করছি। মানুষকে উন্নত জীবন দেওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছি। আজকে আমি আনন্দিত যে, আমরা এ পর্যন্ত ৩৩৪ উপজেলাকে ভূমিহীনমুক্ত করতে পেরেছি। ১৯৯৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৫ লাখ, ৫৫ হাজার ৬১৭টি পরিবারকে ঘর দিতে পেরেছি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ দূরদর্শী কাজের মাধ্যমে দরিদ্র অথবা দারিদ্র্যসীমার নিচে যারা অবস্থান করছেন, তাদের জীবনযাত্রার আমূল পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। তাদের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, চিকিৎসা, পেশাগত উন্নয়ন, নারীর ক্ষমতায়ন, পুষ্টিসহ সব ক্ষেত্রে আশ্রয়ণ প্রকল্পের রয়েছে অসাধারণ ভূমিকা। যা হবে দেশের টেকসই উন্নয়নের সহায়ক। এর মাধ্যমে নারীর ঘর তথা জমির মালিকানাও নিশ্চিত হয়েছে, যা স্বীকৃতি পেয়েছে মৌলিক ধারণা হিসাবে।

সবার জন্য বাসগৃহ নিশ্চিত হলে জনস্বাস্থ্য হবে সুরক্ষিত ও নিরাপদ। কমবে দারিদ্র্য, দরিদ্র মানুষের সংখ্যা। সহজে সম্প্রসারিত করা সম্ভব হবে সামাজিক সেবাসমূহ। উল্লেখ্য, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সংবিধানের ১৬ অনুচ্ছেদে গ্রাম-বাংলায় কৃষি বিপ্লব, বিদ্যুৎ ব্যবস্থা, কুটির শিল্পসহ আনুষঙ্গিক শিল্পের বিকাশ, শিক্ষা, যোগাযোগ, জনস্বাস্থ্যের উন্নয়নের মাধ্যমে আমূল পরিবর্তনের অঙ্গীকার করেছিলেন। তাঁর সেই দূরদর্শী স্বপ্ন বাস্তবায়ন হচ্ছে তাঁরই সুযোগ্য কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে।

অন্ন বস্ত্র বাসস্থান শিক্ষা ও চিকিৎসা মানুষের মৌলিক অধিকারের পর্যায়ে পড়ে। আমাদের দেশে যে মানুষের নির্দিষ্ট বাসস্থান নেই, তাকে মূল্যায়ন করা হয় ঠিকানাহীন মানুষ হিসেবে। এক সময় দেশে এমন ঠিকানাহীন মানুষের সংখ্যা ছিল বিশাল। এদের একাংশ দারিদ্র্যতার কারণে হারিয়েছে নিজেদের বাড়িঘরসহ সবকিছু। অন্য অংশ নদীভাঙনের শিকার। আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের অঙ্গীকার ছিল, সব নাগরিকের মৌলিক অধিকার পূরণ। বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার পর যখন যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশের দায়িত্ব গ্রহণ করেন তখন দেশের বৈদেশিক মুদ্রার কোনো রিজার্ভ ছিল না। দেশের সাড়ে ৭ কোটি মানুষের দেড় কোটি ছিল গৃহহীন। যাদের ১ কোটি মানুষ মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তানি দখলদার বাহিনীর হত্যাকাণ্ডের ভয়ে ভারতে আশ্রয় নিয়েছিল। ৫০ লাখ মানুষ ছিল স্বদেশেই উদ্বাস্তু। সে অবস্থায়ও শূন্য হাতে বঙ্গবন্ধু গৃহহীনদের গৃহদানের প্রকল্প গ্রহণ করেন। জাতির পিতার পথ ধরে বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রত্যেক ভূমিহীন মানুষের জন্য নিজস্ব আবাসের ব্যবস্থা করার কথা বলেছেন।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান উন্নয়নের অগ্রাধিকার হিসেবে ভূমিহীন, গৃহহীন ও শিকড়হীন মানুষকে পুনর্বাসনের উদ্যোগ নিয়েছিলেন। জাতির পিতার স্বপ্নের কথা বিবেচনা করে ১৯৯৭ সালে তার সরকার ‘আশ্রয়ণ’ নামে একটি প্রকল্প চালু করে-যার অর্থ ভূমিহীন ও আশ্রয়হীনদের জন্যে আবাসন। শেখ হাসিনার সরকার সকলের জন্যে বিনা মূল্যে আবাসন নিশ্চিত করতে আন্তরিক প্রচেষ্টা চালিয়েছে।

সরকার ক্ষমতা গ্রহণের আগে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তা অনেক আগেই পূরণ করেছে। ইতোমধ্যেই জনগণের প্রত্যাশার চেয়েও বেশিকিছু করতে পেরেছে। গুণগত ও সংখ্যাগত দুই দিক থেকেই উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন হয়েছে। কৃষিক্ষেত্রে সরকারের ভূমিকা প্রশংসার দাবি রাখে। খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা এসেছে, আমরা বাইরে রপ্তানিও করতে পারি। দেশে অবকাঠামোগত ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান হয়েছে। আইটি সেক্টর আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। এসব ইতিবাচক পরিবর্তনগুলোকে অব্যাহত রাখতে পারলে অচিরেই দেশ সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হবে।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ, বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী এবং বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফল শহর থেকে গ্রামে সবাই পাচ্ছে। ঘরে বসে দেশে-বিদেশে তথ্য বিনিময়সহ। অনলাইনে প্রয়োজনীয় অনেক কাজ সম্পন্ন হচ্ছে। ইন্টারনেটের কারণে বিশ্ব একেবারেই হাতের মুঠোয়। এই ইতিবাচক পরিবর্তন ও ব্যাপক উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড সত্যিই যুগান্তকারী পদক্ষেপ বলে বিবেচিত হবে।

শিক্ষায় বৈপ্লবিক পরিবর্তন এসেছে। বছরের প্রথম দিনেই বিনামূল্যে সকল পাঠ্যবই পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। আগে মেয়েরা পড়াশুনায় অনগ্রসর ছিল, এখন উপবৃত্তিসহ বিভিন্ন প্রণোদনার কারণে মেয়েদের শিক্ষিত করার ব্যাপারে অভিভাবকদের সচেতনতা বেড়েছে এবং মেয়েরাও শিক্ষা গ্রহণে আগ্রহী হয়েছে।

দেশপ্রেমী প্রবাসী বাংলাদেশিরা তাদের কষ্ঠার্জিত উপার্জন দেশে পাঠাচ্ছে। বাড়ছে রেমিটেন্স, বিনিয়োগ বান্ধব পরিবেশ হচ্ছে সুনিশ্চিত। মানুষের জীবনযাত্রার মানোন্নয়ন হয়েছে, মাথাপিছু আয় বেড়েছে।

একসময় বাংলাদেশ এলডিসিভুক্ত ছিল। বলা হতো অনুন্নত দেশ, তারপর বলা হতো উন্নয়নকামী দেশ। নিম্ন বা গরিব দেশ থেকে এখন মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশ। এক্ষেত্রে বর্তমান সরকারের বড় অবদান রয়েছে। আমরা যদি দক্ষ শ্রমিক বিদেশে পাঠাতে পারি তাহলে রেমিটেন্স আরো বাড়বে। গ্যাস-বিদ্যুতের চাহিদা পূরণ করতে পারলে শিল্প-কারখানা আরো গড়ে উঠবে, বিদেশি বিনিয়োগও বাড়বে।

বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা আজ দৃশ্যমান। এক সময় বাংলাদেশকে যারা তলাবিহীন ঝুড়ি বলতো, আজ তারাই দেশের উন্নয়ন নিয়ে প্রশংসা করেন। এটাই আওয়ামী লীগের অর্জন। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নারী নেত্রীদের মধ্যে আইকন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, চীনসহ সকলের সাথে সুসম্পর্ক রেখে দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত রেখেছেন। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০৮ সালে জাতীয় নির্বাচনে যে স্বপ্ন দেশের মানুষকে দেখিয়ে ছিলেন, আজকে সেই স্বপ্ন বাস্তবে রূপ লাভ করেছে।

লেখক: পরিচালক, বিজিএমইএ; শিল্প ও বাণিজ্যবিষয়ক সম্পাদক, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ; চেয়ারম্যান, নিপা গ্রুপ ও কেসি ফাউন্ডেশন



বার্তা সূত্র