শক্তিবৃদ্ধি ভারতীয় সেনার, আসছে ডিআরডিও-র তৈরি মেশিন পিস্তল

নয়াদিল্লি : সম্পূর্ণ দেশীয় পদ্ধতিতে তৈরি ৯ এমএম সাব-মেশিনগান (ASMI/অস্মি) পেতে চলেছে ভারতীয় সেনা। যৌথ উদ্যোগে যা তৈরি করেছে ভারতের প্রতিরক্ষা গবেষণা সংস্থা ও ভারতীয় সেনা।প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে আত্মনির্ভরতার পথে এগিয়ে গেল ভারত।

এই পিস্তলটি শুধু ভারতীয় সেনাই নয়, আইটিবিপি, এসএসবি, সিআরপিএফ, বিএসএফও ব্যবহার করতে পারবে বলে জানানো হয়েছে। ডিআরডিওর পক্ষ থেকে এক প্রেস বিবৃতি প্রকাশ করে জানানো হয়েছে এই খবর। পরে ট্যুইট করেও মেশিন পিস্তল সম্পর্কে তথ্য দেয় ডিআরডিও।

ডিআরডিও জানায়, ৯ এমএম পিস্তল তৈরিতে ব্যবহার করা হয়েছে বিমান তৈরি করার মানের অ্যালুমিনিয়াম। এক একটি পিস্তলের দাম ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত হতে পারে। বিদেশে রফতানির জন্যও প্রস্তুত এই পিস্তল। এটির নিশানা অব্যর্থ। কমপ্যাক্ট পিস্তলটি ওজনে বেশ হালকা।

ডিআরডিও বিবৃতিতে জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আত্মনির্ভর ভারত প্রকল্পে জোর দিয়ে এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। ক্ষুদ্র পদক্ষেপ হলেও এই মেশিন পিস্তল অত্যন্ত কার্যকরী ভূমিকা নেবে সেনা বাহিনীর কাছে বলেই মনে করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য অস্ত্র আমদানির ক্ষেত্রে বিশ্বে ভারত রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে। অস্ত্র রফতানিতে ২৩ নম্বর স্থানে রয়েছে ভারত। প্রধানমন্ত্রী মোদী আগামী পাঁচ বছরে প্রতিরক্ষা রফতানিতে ৫বিলিয়ন ডলারের লক্ষ্যমাত্রা রেখেছেন। তাঁর আশা ভারত আগামী পাঁচ বছরে অর্থাৎ ২০২৫ সালের মধ্যে ১.৭৫ লক্ষ কোটি টাকার প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম রফতানি করতে সক্ষম হবে।

ভারত সেই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষের সময় থেকে ব্রিটেনের তৈরি স্টারলিং সাব-মেশিন গান ব্যবহার করছে৷ জার্মান থেকে এমপি ফাইভ ও এমপি নাইনের পাশাপাশি ইজরায়েল থেকে উজিও আমদানি করতে হয় ভারতকে৷ এবার আর্মি ওয়ার কলেজের তরুণ অফিসার লেফ্টেনেন্ট কলোনেল প্রসাদ বনসোদ দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি প্রথম সাব-মেশিনগানের নকশা করেছেন৷ পুণের ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট (ডিআরডিও)-এর আর্মামেন্ট রিসার্চ অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট এস্টাব্লিশমেন্ট (এআরডিই) মিলে তৈরি করল অস্মি৷

প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং জানিয়ে ছিলেন ২০১৫ থেকে ২০২০-র মধ্যে তিন বাহিনীতে এরকম অন্তত সাড়ে ৩ লক্ষ টাকার অস্ত্র ও সরঞ্জাম আমদানি করা হয়েছে। এবার এই সিদ্ধান্তের পর ভারতীয় সংস্থাই ৪ লক্ষ টাকার বরাত পাবে আগামী ৬-৭ বছরে। আর্টিলারি গান, কমব্যাট হেলিকপ্টার, অ্যাসল্ট রাইফেল, কভার্ট, রাডার, সশস্ত্র গাড়ি, ট্রান্সপোর্ট এয়ারক্রাফট সহ একাধিক উচ্চপ্রযুক্তিসম্পন্ন অস্ত্র এবার থেকে তৈরি হবে ভারতেই। ভারতের নিজস্ব প্রযুক্তি ও নিজস্ব ডিজাইন দিয়ে সেইসব সরঞ্জাম দেশের মাটিতে তৈরি করা হবে বলে জানা গিয়েছে।

কী এই অস্মি?

বন্দুকের আপার রিসিভার তৈরি হয়েছে বিমান নির্মাণে ব্যবহৃত অ্যালুমিনিয়ামে৷ লোয়ার রিসিভারে রয়েছে কার্বন ফাইবার৷ থ্রিডি প্রিন্টিংয় ও মেটাল থ্রিডি প্রিন্টিংয়ের সাহায্যে ট্রিগার ও অনান্য সামগ্রী তৈরি হয়েছে৷ ২ কেজিরও কম ওজনের এই বন্দুকে ৮ ইঞ্চি ব্যারেল ও ৩৩ রাউন্ডের উচ্চ শক্তি সম্পন্ন ম্যাগাজিন রয়েছে৷ আপার রিসিভারে পূর্ণ দৈর্ঘ্যের অবিচ্ছেদ্য পিকাটিলি রেল ঘড়ির কাঁটা ১২-র দিকে চলে ও অনান্য আধুনিক স্কোপ/অপটিকস ৬-এর দিক মেনে চলে৷ ঘড়ির কাঁটার ৩ ও ৯ মেনে মডিউলার লকের স্লট কাজ করে৷

এই বন্দুক মূলত কী কাজে ব্যবহার হবে?

ভারতীয় সেনার সশস্ত্র বাহিনীর ব্যক্তিগত ব্যবহারে এটা ভীষণ কার্যকর হবে৷ কমান্ডার থেকে শুরু করে ট্যাঙ্ক ও এয়ারক্রাফ্টের সেনাদেরও কাজে লাগবে৷ এছাড়াও ভিআইপি-দের সুরক্ষায় দুর্দান্ত কার্যকরী হবে৷ মনে করা হচ্ছে একটি অস্মি নির্মাণের খরচ হবে ৫০ হাজার টাকা৷ কেন্দ্রীয় পুলিশ সংস্থার পাশাপাশি রাজ্য পুলিশ সার্ভিসের কাজেও লাগবে অস্মি৷ মনে উত্তর-পূর্ব এশিয়ার পাশাপাশি অনান্য দেশেও ভারতে তৈরি বন্দুক কিনতে আগ্রহী হবে৷

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।