Skip to content

যেদিন সব মুসলিমরা ‘ভারত মাতা কি জয়’ বলতে পারবে সেদিনই দেশে মুসলিম প্রধানমন্ত্রী হবে: বিবেক অগ্নিহোত্রী

বাংলাহান্ট ডেস্ক: বিতর্ক তৈরিতে সিদ্ধহস্ত পরিচালক বিবেক অগ্নিহোত্রী (Vivek Agnihotri)। ‘দ‍্য কাশ্মীর ফাইলস’ মুক্তির আগে থেকে চর্চায় রয়েছেন তিনি। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে নিজের মতামত প্রকাশ করে লাইমলাইট ধরে রেখেছেন বিবেক। তাঁর বেশিরভাগ বক্তব‍্যই বিতর্ক সৃষ্টি করে নেটমাধ‍্যমে। আর এবারেও ফের তেমনটাই করেছেন তিনি।

সদ‍্য ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী পদে নির্বাচিত হয়েছেন ঋষি সুনক। তিনিই ব্রিটেনের রাজনৈতিক ইতিহাসে প্রথম ভারতীয় বংশোদ্ভূত এবং হিন্দু প্রধানমন্ত্রী। স্বাভাবিক ভাবেই গোটা ভারতবাসী বিষয়টা নিয়ে গর্বিত। এক সাংবাদিক এই প্রসঙ্গ টেনেই টুইটারে প্রশ্ন করেন, ‘তাহলে একজন মুসলিমকে আমরা কবে গ্রহণ (এবং নির্বাচিত) করতে পারব ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসাবে?’


টুইটের উত্তরে কার্যত বিষ্ফোরণ ঘটিয়েছেন বিবেক। তিনি পালটা লেখেন, ‘যেদিন ভারতের সব মুসলিমরা ‘কাফির’ শব্দটা বয়কট করবে, নিঃশর্তে ইসলামিক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে বলবে, স্বীকার করবে যে কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ‍্য অংশ, প্রথমে নিজেকে ভারতীয় বলে পরিচয় দেবে আর একই রকম তেজ এবং অঙ্গীকারের সঙ্গে বলবে ‘ভারত মাতা কি জয়’ এবং ‘বন্দে মাতরম’। আপনি তৈরি?’

প্রসঙ্গত, একই বিবাদ শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলেও। সুনকের ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হওয়ার প্রসঙ্গ তুলে কংগ্রেস প্রশ্ন ছুঁড়েছে, ভারতেও কেন সংখ‍্যালঘু সম্প্রদায় থেকে কেউ প্রধানমন্ত্রী হতে পারবে না? পালটা বিজেপির দাবি, মনমোহন সিং এক শিখ ছিলেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছিলেন। এছাড়াও তিনজন মুসলিম রাষ্ট্রপতিও নির্বাচিত হয়েছেন ভারতের।

বিবেক অগ্নিহোত্রীর প্রসঙ্গে ফিরলে, সম্প্রতি ‘দ‍্য কাশ্মীর ফাইলস’ এর সিক‍্যুয়েল আসার ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। সম্প্রতি টুইটারে একটি ডকুমেন্টারি ভিডিও শেয়ার করেছিলেন জনৈক নেটনাগরিক। ভিডিওতে কাশ্মীরি পণ্ডিতদের উপরে ফের অত‍্যাচার এবং নির্বিচারে হত‍্যার কথা উঠে এসেছে।

ভিডিওটি শেয়ার করে ওই ব‍্যক্তি ট‍্যাগ করেছিলেন বিবেক অগ্নিহোত্রীকে। প্রশ্ন করেছিলেন, এর থেকে একটা কাশ্মীরি ফাইলস হতে পারে কি? উত্তরও দিয়েছেন পরিচালক। তিনি লিখেছেন, ‘হ‍্যাঁ কাজ চলছে। ২০২৩ এর মাঝামাঝি পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।’



বার্তা সূত্র