Skip to content

মুম্বাই হামলার মাস্টারমাইন্ড আজমের মৃত্যু!

মুম্বাই হামলার মাস্টারমাইন্ড আজমের মৃত্যু!

পাকিস্তানে আবারও জঙ্গির রহস্যজনক মৃত্যুর খবর। মাত্র দুই দিনের ব্যবধানে দুই শীর্ষ জঙ্গি মারা যাওয়ার খবরে বেশ চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। গোয়েন্দা সূত্রের বরাতে ভারতের সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, মুম্বাই হামলার অন্যতম মাস্টারমাইন্ড আজম চিমা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। 

পাকিস্তানভিক্তিক সন্ত্রাসি জঙ্গি গোষ্ঠী লস্কর-ই-তৈয়বার অন্যতম কমান্ডার আজম চিমা ফয়সলাবাদে মারা গেছেন বলে নিশ্চিত করেছে ভারতের গোয়েন্দা সূত্র। মৃত্যুর পর ৭০ বছরের আজম চিমার মরদেহ একই শহরে গোপনে দাফন করা হয়েছে। ফয়সলাবাদের মালখানাওয়ালাতেই বছর কয়েক গা ঢাকা দিয়েছিলেন আজম। সেখানেই মৃত্যু হয় তার। যদিও এখনও পর্যন্ত লস্কর-ই-তৈয়বা এনিয়ে কোনো মন্তব্য করেনি।

মুম্বই হামলার অন্যতম মাস্টারমাইন্ড আজম লস্কর-ই-তৈয়বার অন্যতম কমান্ডার এই আজম চিমার ছকেই রক্তাক্ত হয়েছিলো ভারতের বাণিজ্যনগরী মুম্বাই। ২০০৮ সালের মুম্বাই হামলার ছকই শুধু নয়, ২০০৬ সালেও মুম্বাইয়ের ট্রেনে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনার অন্যতম মূলচক্রীও ছিলেন তিনি।

আজম চিমা দেহরক্ষীদের ঘেরাটোপে দেখা যেতো। বুলেট প্রুফ গাড়িতে ঘুরে বেড়াতেন তিনি। করাচি, লাহোরসহ পাকিস্তানের বিভিন্ন জায়গার জঙ্গি সংগঠনের আস্তানায় যেতেন আজম। সেখানে তাকে প্রশিক্ষণ দিতেও দেখা যেতো। আজমের নাকি ভারতসহ বিভিন্ন দেশের মানচিত্র সম্পর্কে ধারণা ছিলো স্পষ্ট। তাই বিভিন্ন হামলার ঘটনায় ছক কষতে তিনি অগ্রণী ভূমিকা নিতেন।

আমেরিকার ডিপার্টমেন্ট অফ ট্রেজারি জঙ্গি আজম চিমাকে লস্কর অপারেশনের ‘মূল কমান্ডার’ হিসাবে বর্ণনা করেছে। এমনকি ওসামা-বিন-লাদেনের আল-কায়েদা গোষ্ঠীর সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন আজম। ২০০৮ সালে আমেরিকাতে স্মরণকালের ভয়াবহ জঙ্গি হামলার ঘটনার নেপথ্যেও ছিলো আজমের মাথা। আমেরিকার এই জঙ্গিকে ধরতে কম চেষ্টা চালায়নি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তার নাগাল পায়নি আমেরিকার তুখোড় গোয়েন্দারা। 



বার্তা সূত্র