Skip to content

মঠবাড়িয়ায় হিন্দু ধর্মীয় সংগঠনের তিন নেতার ওপর হামলার বিচার দাবি – আজকের মঠবাড়িয়া

মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি :

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় পূর্ব বিরোধের জের ধরে হিন্দু ধর্মীয় সংগঠনের তিন নেতার ওপর হামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভূক্তভোগি নেতারা।
আজ শনিবার দুপুরে উপজেলা হিন্দু পরিষদ কার্যালয়ে হামলার শিকার সদর ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক দেব দুলাল ,উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শ্যমা শংকর এবং আমড়াগাছিয়া ইউনিয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক উত্তম কর্মকারসহ সংগঠনের নেতারা সংবাদ সম্মেলন করে এ ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে হামলাকারিদের বিচার দাবি করেন।

হামলায় আহত উত্তম কুমার রায় লিখিত বক্তব্যে বলেন, পূজা উদযাপন কমিটি গঠন নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলছিল। ৯জুন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সদস্য লিটন চন্দ্র সমদ্দারকে কাজল দাসের ভাই সজল চন্দ্র দাস মোবইলে হুমকি দিলে এ নিয়ে থানা সাধারণ ডায়রী করেন। এসব বিষয় ও সম্প্রতি উপজেলা পূজা কমিটি গঠণ নিয়ে নতুন করে তাদের মধ্যে ওই বিরোধ চাঙ্গা হয়ে উঠে। তারই ধারাবাহিকতায় ঘটনার দিন বৃহষ্পতিবার রাতে দেব দুলাল ও উত্তম রায় পৌর শহরের বিমল কর্মকারের দোকানের সামনে রাখা মটরসাইকেলে উঠলে বিদ্যুৎ চলে যায়। এসময় বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের উপজেলা কমিটির সভাপতি ও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কাজল চন্দ্র দাস, শিক্ষক বাবুল কির্ত্তুনিয়া ও একই কমিটির সাধারণ সম্পাদক পার্থ রঞ্জন বেপারীসহ ১৫/২০ জন মিলে পরিকল্পিতভাবে হাতুড়ি, লোহার রড ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে গুরুতর আহত করে। পরে উপজেলা ভূমি অফিসের সামনে শ্যামা শংকরকে হাতুড়ি পেটা করে আহত করে।
এঘটনায় শুক্রবার রাতে দেব দুলাল হাওলাদার বাদী হয়ে ৪ জন নামীয় এবং অজ্ঞাত ২০ জনকে আসামী করে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে আসামীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানিয়ে বিচার দাবি করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কৃষকলীগ নেতা শ্যামা শংকর রায়, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শিবু সাওজাল, অমিতাভ মজুমদার, প্রবীণ সমাজ সেবক পরেশ বেপারী, যুব সংগঠক জীয়ূ বড়াল ও সন্তোষ তালুকদার প্রমুখ।

মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. কামরুজ্জামান তালুকদার হামলার ঘটনায় অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

বার্তা সূত্র