Skip to content

বিএনপি মহাসচিবের সঙ্গে কানাডার হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ, নির্বাচন ও মানবাধিকার নিয়ে আলোচনা

বিএনপি মহাসচিবের সঙ্গে কানাডার হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ, নির্বাচন ও মানবাধিকার নিয়ে আলোচনা

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে দেখা করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত কানাডার হাইকমিশনার লিলি নিকোলস। সাক্ষাতকালে তারা বাংলাদেশের আসন্ন জাতীয় নির্বাচন ও মানবাধিকার পরিস্থিতি সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন।

সোমবার (১৪ নভেম্বর) দুপুর দেড়টায় হাইকমিশনার নিকোলস বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে পৌঁছান। সেখানে মির্জা ফখরুলের নেতৃত্বে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন তিনি। বৈঠক শেষ হয় বেলা ৩টা ১০ মিনিটে। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ।

পরে আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বৈঠক ও আলোচনার বিষয় সম্পর্কে সাংবাদিকদের জানান। তিনি বলেন, “আমাদের খুব ভালো আলোচনা হয়েছে। আমরা বাংলাদেশের বর্তমান প্রেক্ষাপট, বিশেষ করে মানবাধিকার, আমাদের নির্বাচন, আইনের শাসন এবং জনজীবনের নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কথা বলেছি।”

আমীর খসরু বলেন, “মানবাধিকার, গণতান্ত্রিক অধিকার, জনজীবনের নিরাপত্তা, আইনের শাসন এবং সুশাসন-কে অত্যন্ত গুরুত্ব দেয় কানাডা। এছাড়া, কানাডা এবং অন্য কিছু দেশ সবসময় এই বিষয়ে কঠোর অবস্থান নেয়।”

তিনি বলেন, “কানাডা বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশ সরকার-কে দ্বিপাক্ষিক ভাবে বলেছে যে এখানে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে।বাংলাদেশের জনগণ, গণতান্ত্রিক দেশ, বহুপাক্ষিক সংস্থা এবং সারা বিশ্বের মানবাধিকার সংস্থাগুলোর মতো কানাডাও অনেক বিষয়ে উদ্বিগ্ন, কারণ তারা গণতন্ত্র এবং মানবাধিকারকে গুরুত্ব দেয়।”

পরবর্তী নির্বাচন নিয়ে কানাডা কী বলেছে, জানতে চাইলে; খসরু বলেন, “কী আলোচনা করেছেন তা বিস্তারিত বলা যাবে না। আমরা বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি সম্পর্কিত সমস্ত বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছি। তবে আমরা কী আলোচনা করেছি তা বিশদভাবে বলার সুযোগ নেই।”

আমীন খসরু বলেন, “বর্তমান সরকারের অধীনে বিএনপির পরবর্তী নির্বাচনে যাওয়ার কোনও কারণ নেই এবং বিএনপি এই অবস্থানে কঠোর। একটি বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন নিশ্চিত করতে, বর্তমান সরকারকে হটিয়ে একটি তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। যেখানে জনগণ স্বাধীনভাবে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবে। আওয়ামী লীগ, নির্বাচন কমিশন এবং অন্যরা পরবর্তী নির্বাচন সম্পর্কে কি বলবে তা নিয়ে আমরা কম চিন্তিত।”

আমীর খসরু আরও বলেন, “বাংলাদেশ ও কানাডা দীর্ঘদিন ধরে বৈচিত্র্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রেখে আসছে। বাংলাদেশ কানাডায় প্রায় দুইশ’ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি করে।”

সূত্র: ভয়েজ অব আমেরিকা