Skip to content

বাংলাদেশ বিশ্বের সবচেয়ে কম অস্থির পুঁজিবাজারের একটি: বিএসইসি চেয়ারম্যান

বাংলাদেশ বিশ্বের সবচেয়ে কম অস্থির পুঁজিবাজারের একটি: বিএসইসি চেয়ারম্যান

ফ্রান্সে রোড শো

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম দাবি করেছেন, গত দুই বছর ভারত, পাকিস্তান, হংকং, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের চেয়েও বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে সবচেয়ে কম অস্থিরতা বিরাজ করছে। তাই দেরি হওয়া আগেই বাংলাদেশে বিনিয়োগ করুন। বাংলাদেশে বিনিয়োগে বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে সেগুলো নিন। এসময় ফ্রান্সের বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগ করে উন্নয়নের অংশীদার হওয়ারও আহ্বান জানান বিএসইসির চেয়ারম্যান। 

তিনি বলেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগে বিশাল সম্ভাবনা রয়েছে। তাই এখনই বাংলাদেশে বিনিয়োগের সঠিক সময়। দেরি হওয়া আগেই বাংলাদেশে বিনিয়োগ করুন। সেজন্য ফ্রান্সে অবস্থানরত প্রবাসী ও বিদেশি বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানাচ্ছি।

সোমবার (২৩ অক্টোবর) ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে অনুষ্ঠিত ‘দ্য রাইজ অব বেঙ্গল টাইগার: বাংলাদেশ-ফ্রান্স ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট সামিট- প্যারিস ২০২৩’ শীর্ষক রোডশোতে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি বিনিয়োগ ও শিল্প বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, ইউনেস্কোর অ্যাম্বাসেডর খন্দকার এম তালহা, ফ্রান্স বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট পিয়েরে জিন মালগুয়েরেস, দেশটিতে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত, বিভিন্ন প্রাতিষ্ঠানিক ও ব্যক্তি বিনিয়োগকারী এবং স্টেকহোল্ডাররা অংশগ্রহণ করেন।

রোড শোটি সঞ্চালনা করেন এলআর গ্লোবাল বাংলাদেশ অ্যাসেট ম্যানেজমেন্টের (এলআর গ্লোবাল) ব্যস্থাপনা পরিচালক ও সিআইও রিয়াজ ইসলাম।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোড শো উপলক্ষে একটি ভিডিও শুভেচ্ছা বার্তা দিয়েছেন।

অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম বলেন, আমাদের পুঁজিবাজারও ক্রমবর্ধমান। সেজন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। বর্তমানে আমাদের মোট মার্কেট ক্যাপিটাল ৭২ বিলিয়ন ডলার। এর মধ্যে মোট ইক্যুইটি মার্কেট ক্যাপিটাল ৪১.২১ বিলিয়ন ডলার। ২০১৩ সালে অ্যাভারেজ মার্কেট টার্নওভার ৫৯ বিলিয়ন ডলার।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, আমাদের পুঁজিবাজারও দারুণ ভূমিকা রাখছে। অন্যান্য দেশের তুলনায় এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে কম অস্থিরতা বিরাজ করছে। কোভিড ও ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ পরবর্তী বিগত দুই বছরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ যেমন-ভারত, পাকিস্তান, হংকং, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের চেয়েও বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে সবচেয়ে কম অস্থিরতা বিরাজ করছে। তাই সম্প্রতি এইচএসবিসি ব্যাংক জানিয়েছে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সঠিক জায়গা। 

গত ১৩ বছরে ২৪৫টি কোম্পানি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়েছে। দীর্ঘমেয়াদে বিনিয়োগের জন্য আমাদের পুঁজিবাজারে ভালো মানের স্টক রয়েছে। কারণ বাংলাদেশে ভালো কোম্পানি হিসেবে তারা ভালো রিটার্ন দিচ্ছে।

তিনি বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশ ও ফ্রান্সের মধ্যে গ্রোইং ট্রেড রিলেশনশিপ রয়েছে। এ সম্পর্ক দিনে দিনে আরও শক্তিশালী হচ্ছে। বিগত কয়েক বছরে বাংলাদেশ ও ফ্রান্সের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য অনেক বেড়েছে। আগামীতে বাংলাদেশ ফ্রান্সের কাছ থেকে বড় বিনিয়োগ প্রত্যাশা করে।

শিবলী রুবাইয়াত বলেন, বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক ইলেক্ট্রোনিক কোম্পানি ও মোটর কার কোম্পানি বাংলাদেশে উৎপাদনে আসছে। আমরা পরবর্তী চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি। বাংলাদেশে এখন ম্যানুফ্যাকচারিং ও ইঞ্জিনিয়ারিং নিজস্ব প্রোডাক্ট রয়েছে। এখন তারা গাড়ি, মটরসাইকেল, ফ্রিজ এবং বিভিন্ন ইলেক্ট্রোনিক ও হাউজহোল্ড প্রোডাক্ট উৎপাদন শুরু করছে।

তিনি আরও বলেন, দেরি হওয়া আগেই বাংলাদেশে বিনিয়োগ করুন। বাংলাদেশে বিনিয়োগে বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, বৈশ্বিক অস্থিরতার মধ্যে ঘুরে দাঁড়ানো সক্ষমতা, আর্থিক ও রাজস্ব নীতি এবং বিনিয়োগবান্ধব সরকার, মুনাফাসহ বিনিয়োগ প্রত্যাবর্তনের জন্য কোনো প্রাক-অনুমোদন নেই এবং সমুদ্রের সম্পদনির্ভর অর্থনীতি রয়েছে।

রোড শোতে বাংলাদেশে বিনিয়োগের সুযোগ-সুবিধা, বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড, সরকারের বিনিয়োগবান্ধব নীতি, শেয়ারবাজার ও সার্বিক অর্থনীতির পরিস্থিতি এবং এফডিআই’র বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতা অতিথিদের সামনে তুলে ধরা হয়।

দেশের শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের উপযুক্ত স্থান হিসেবে চিহ্নিত করার জন্য বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন দেশ ও শহরগুলোতে ধারাবাহিক রোড শো করার পরিকল্পনা করেছে বিএসইসি। 

এর আগে প্রথম দফায় দুবাইতে, দ্বিতীয় দফায় যুক্তরাষ্ট্রে, তৃতীয় দফায় সুইজারল্যান্ড, চতুর্থ দফায় যুক্তরাজ্য, পঞ্চম দফায় কাতার, ষষ্ঠ দাফয় জাপন, সপ্তম দফায় দক্ষিণ আফ্রিকায় সাফলতার সঙ্গে রোড শো সম্পন্ন করেছে বিএসইসি। ইউরোপে রোড শো বিএসইসির অষ্টমতম আয়োজন। প্রতিবারের মতো এবারেও রোড শোতে বিএসইসির সঙ্গে আয়োজক হিসবে রয়েছে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা)।



বার্তা সূত্র