Skip to content

বাংলাদেশে গিয়ে ‘বড়লোকের বেটি লো’ গাইলেন বাদশা, কনসার্টের জন্য নিলেন কত টাকা?

বাংলাদেশে গিয়ে 'বড়লোকের বেটি লো' গাইলেন বাদশা, কনসার্টের জন্য নিলেন কত টাকা?
ঢাকা মাতালেন ভারতের ‘র‍্যাপ কিং’ বাদশা। ঢাকার ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি, এক্সপো জোন) করা হয় ‘টেকনো স্পার্ক ২০ সিরিজ’ মিউজিক ফেস্ট। সেখানেই ছিলেন এই র‍্যাপ গায়ক। বাদশহের গান শোনা এবং লাইফ পারফরম্যান্স দেখা জন্য দর্শক উপচে পড়ে সেখানে। বাদশার আইকনিক ডেবিউ জিঙ্গেল ‘ডিজে ওয়ালে বাবু’ থেকে ‘বড়লোকের বেটি লো’-এর তালে মেতে উঠেছিল পুরো এলাকা।

বাংলাদেশে গান গাইতে কত টাকা নিলেন বাদশা?

বাদশার আসল নাম আদিত্য প্রতীক সিং সিসোডিয়া। তবে তিনি বাদশা হিসাবেই পরিচিত। হিন্দি, হরিয়ানি ও পাঞ্জাবি গানের জন্য এখন ভারতের বাইরেও পরিচিতি পেয়েছেন তিনি। পরপর তিন বছর ধরে ভারতের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত সেলিব্রিটি হিসাবে তিনি ফোর্বস ইন্ডিয়ার টপ ১০০জন সেলিব্রেটির তালিকায় স্থান পেয়েছেন।

টেকনো স্পার্ক ২০ সিরিজ মিউজিক ফেস্টে গান করার জন্য তিনি কত টাকা নিয়েছেন সেটা জানাতে চাননি আয়োজকরা। তবে সূত্রের খবর, একটি গান করার জন্য ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকা নেন বাদশা। কিন্তু দেশের বাইরে একটি অনুষ্ঠান করার জন্য গেলে কত টাকা এবং কী কী সুবিধা নিতে চান ইঞ্জিনিয়ার থেকে র‍্যাপার হয়ে ওঠা এই গায়ক তা কেউ জানাতে চায়নি।

তবে ঢাকায় গান গুনে উদ্বেলিত হয়েছেন সবাই। জমজমাট মিউজিকের সঙ্গে তাঁর পারফরম্যান্সের মাধ্যমে মঞ্চ এবং দর্শকদের মাতিয়ে তোলেন বাদশা। বাদশার পারফরম্যান্সের সময় হয় হাজারো আতশবাজির প্রদর্শন। সেই সঙ্গে এআই প্রযুক্তি ব্যবহার করে ভিডিয়োগুলি এমনভাবে তৈরি করা হয়, যার সঙ্গে দর্শকদের মেতে ওঠা, মিউজিক্যাল বিট এবং সবকিছু মিলে একীভূত হয়ে যায়। বাদশাও জানিয়েছেন যে এই রকম সাড়া পেয়ে তিনি আনন্দিত এবং পারফর্ম করার সুযোগ পেয়ে কৃতজ্ঞ। ঢাকা তাঁকে মোটেও হতাশ করেনি। তিনি আবার ঢাকা আসতে চান বলেও জানান বাদশা।

Chanchal Chowdhury : হাশিম মাহমুদের গান গাইলেন চঞ্চল, প্রশংসায় নেটিজেনরা

সেই সঙ্গেই আসে ‘বড়লোকের বেটি লো’ এবং গানের প্রসঙ্গ। সিউড়ির রতন কাহারের লেখা গানের ‘গেন্দা ফুল’ অংশটি নিজের গানে ব্যবহার করেন বাদশা । এই নিয়ে বিতর্কও হয়। পরে অবশ্য বাদশা রতন কাহারকে ৫ লাখ টাকা দেন। ঢাকায় এসে বাংলা গান এবং বাংলাদেশের সমৃদ্ধ গানের ঐতিহ্যের প্রতি শ্রদ্ধা প্রকাশ করেন তিনি বলেন, ‘আমার সঙ্গীত সব সময়ই বৈচিত্র্য এবং সাংস্কৃতিক আদান-প্রদানকে ঘিরেই থাকে।’ বাংলাদেশি শিল্পীদের পারফরম্যান্সের প্রশংসা করে বাদশা বলেন, ‘বাংলাদেশের শিল্পীরা অত্যন্ত প্রতিভাবান এবং সৃজনশীল। আমি ভবিষ্যতে এই অঞ্চলের প্রতিভাবান শিল্পীদের সঙ্গে নিয়ে কাজ করতে চাই।’

বার্তা সূত্র