Skip to content

ফাগুন উৎসবে মেতেছেন প্রবাসীরা 

ফাগুন উৎসবে মেতেছেন প্রবাসীরা 

বাইরে হিমবাহ। কিন্তু নিউইয়র্কেও জ্যামাইকায় মেরি লুইস একাডেমি প্রাঙ্গণে তখন উষ্ণতা। বিভিন্ন বয়সের প্রবাসী বাংলাদেশি নারী-পুরুষেরা মেতে উঠেছিলেন ফাগুন উৎসবে। অনুষ্ঠানে নারীদের বাসন্তী রঙের শাড়ি আর পুরুষদের উপহার দেওয়া হয় পাঞ্জাবি। বাসন্তী রঙের শাড়ি ও পাঞ্জাবি পরে উৎসবে যোগ দেন তারা।

অনুষ্ঠানের সুবিশাল মঞ্চে ছিল জনপ্রিয় শিল্পীদের সঙ্গীত পরিবেশনা। ছিল বাফা’র শিল্পীদের নৃত্য পরিবেশনা। অনুষ্ঠানে ছিল অতিথিদের শুভেচ্ছা বিনিময়। 

“}”>

প্রবাসের জনপ্রিয় প্রমোটার প্রতিষ্ঠান শোটাইম মিউজিক অ্যান্ড প্লে (এসএমপি) স্থানীয় সময় রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) এই ফাগুন উৎসবের আয়োজন করে। এটি ছিল তাদের দ্বিতীয় আয়োজন। এ বছর ফাগুন উৎসবের টাইটেল স্পন্সর ছিল যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি মালিকানাধীন মোবাইল অপারেটর কোম্পানি ‘রিভারটেল’ এবং বাংলাদেশি মালিকানাধীন রিয়েল এস্টেট ইনভেস্টর ও ইস্টার্ন ইনভেস্টমেন্টের কর্ণধার নূরুল আজিম। 

ফাগুন উৎসবের উদ্বোধন করেন প্রবাসের আঞ্চলিক সংগঠন দোহার উপজেলা সমিতির সভাপতি দুলাল বেহেদু। 

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন রিভারটেল-এর প্রেসিডেন্ট ও সিইও রুহিন হোসেন, ইস্টার্ন ইনভেস্টমেন্ট-এর কর্ণধার নূরুল আজিম, গ্র্যান্ড স্পন্সর আশা হোম কেয়ারের প্রেসিডেন্ট ও সিইও আকাশ রহমান ও চেয়ারম্যান এশা রহমান, জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির সভাপতি ফখরুল ইসলাম দেলোয়ার, জ্যামাইকা বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও কমিউনিটি বোর্ড মেম্বার আহসান হাবিব, কমিউনিটি অ্যাক্টিভিস্ট হাসান জিলানী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বিলাল চৌধুরী, ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল খালেক প্রমুখ। 

অনুষ্ঠানের টাইটেল স্পন্সর রিভারটেল-এর প্রেসিডেন্ট ও সিইও রুহিন হোসেন বলেন, শোটাইম মিউজিকের ফাগুন উৎসবের সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পেরে রিভারটেল পরিবার আনন্দিত। তিনি এই আয়োজনের জন্য শোটাইম মিউজিকের কর্ণধার আলমগীর খান আলমকে ধন্যবাদ জানান। 

“}”>

রিভালটেল সম্পর্কে রুহিন হোসেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে টি-মোবাইল, এটিঅ্যান্ডটি, লাইকা, আল্ট্রার মত একটি মোবাইল অপারেটর কোম্পানি রিভারটেল। যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি স্টেটে মোবাইল সেবা দেবে প্রতিষ্ঠানটি। 

অনুষ্ঠানে সাংস্কৃতিক পর্বে সঙ্গীত পরিবেশন করেন- চন্দন চৌধুরী, কৃষ্ণা তিথি, মরিয়ম মারিয়া, কামরুজ্জামান বকুল, আফতাব জনি, নীপা জামান, কামরুল ইসলাম, মিতু মাহমুদ, নতুন প্রজন্মের শিল্পী জারিন মাইশা, আলভান চৌধুরী ও বিয়ানা। মনোমুগ্ধকর নৃত্য পরিবেশন করে বাফা’র শিল্পীরা। 

“}”>

অনুষ্ঠান মঞ্চের বাইরে আরেক পাশে সুবিশাল মিলনায়তনে ছিল বিভিন্ন স্টল। এসব স্টলে ছিল বাহারি পণ্য। ছিল বিভিন্ন ধরনের পোশাক ও খাবার। 

আলমগীর খান আলম বলেন, অনুষ্ঠানটি সফলভাবে করতে পারায় আমি খুশি। দর্শনার্থীরা অনুষ্ঠানে এসে আনন্দ পেয়েছেন, এটাই আমাদের বড় প্রাপ্তি। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন মিয়া মোহাম্মদ দুলাল ও কামরুজ্জামান বাবু।



বার্তা সূত্র