পেট্রোবাংলা ও বিপিসির ১৬,৫৬,৮৯,৯৩০ টাকার অডিট আপত্তি নিষ্পত্তির সুপারিশ

পেট্রোবাংলা ও বিপিসির ১৬,৫৬,৮৯,৯৩০ টাকার অডিট আপত্তি নিষ্পত্তির সুপারিশ

ঢাকা, ১৯ নভেম্বর, ২০২০ (বাসস) : জাতীয় সংসদের সরকারী হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভায় পেট্রোবাংলা ও পেট্রোলিয়াম করপোরেশন নিয়ন্ত্রণাধীন প্রতিষ্ঠানসমূহের ২০০৯-‘১৪ অর্থ বছরে ১৬ কোটি ৫৬ লাখ ৮৯ হাজার ৯৩০ টাকার অডিট আপত্তি দ্রুত নিষ্পত্তি করার সুপারিশ করা হয়েছে।
কমিটির সভাপতি মোঃ রুস্তুম আলী ফরাজীর সভাপতিত্বে আজ সংসদ সচিবালয়স্থ কেবিনেট কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় এ সুপারিশ করা হয়।
কমিটির সদস্য মোঃ আব্দুস শহীদ, র, আ, ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, আবুল কালাম আজাদ এবং মনজুর হোসেন সভায় অংশগ্রহণ করেন।
সভায় বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও প্রাকৃতিক সম্পদ মন্ত্রণালয়ের জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের অধীন পেট্রোবাংলা ও বিপিসি’র নিয়ন্ত্রণাধীন প্রতিষ্ঠানসমূহের ২০০৯-২০১৪ অর্থবছরের হিসাব সম্পর্কিত বার্ষিক অডিট রিপোর্ট ২০১৪-২০১৫ এ অন্তর্ভূক্ত অডিট আপত্তির ১, ২, ৩, ৪ ও ৫ অনুচ্ছেদের আপত্তিকৃত অডিটের ওপর আলোচনা করা হয়।
সভায় কার্য সম্পাদন না করা সত্ত্বেও কার্যাদেশ বাতিল করে ব্যাংক গ্যারান্টি নগদায়নের পরিবর্তে ঠিকাদারকে আনুকূল্য প্রদর্শন করে অগ্রিম প্রদান করায় প্রতিষ্ঠানের ৫০ লাখ ২৮হাজার ৯৩৭ টাকা শিরোনামের আপত্তিতে ৩০ কর্মদিবসের মধ্যে একটি কমিটি গঠন করার সুপারিশ করা হয়।
সভায় সরকারি নির্দেশ উপেক্ষা করে প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদেরকে অতিরিক্ত হারে বাড়ি ভাড়া ভাতা প্রদান করায় প্রতিষ্ঠানের আর্থিক ক্ষতি ৬৯ লাখ ৫ হাজার ৩৭৭ টাকা” শিরোনামের আপত্তিতে মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন সাপেক্ষে নিষ্পত্তি করার সুপারিশ করা হয়।
সভায় “বিধি বহির্ভূতভাবে কর্পোরেট ট্যাক্স আদায়ের পূর্বে মুনাফা হতে ওয়ার্কার্স পার্টিসিপেশন ফান্ড ইন প্রোফিট গ্রহণের ফলে আয়কর বাবদ সরকারের রাজস্ব ক্ষতি ৫ কোটি ৭২ লাখ ১২ হাজার ২১৯ টাকা শিরোনামের আপত্তিতে ৪ জনের একটি কমিটি গঠন এবং বর্তমান রিপোর্ট অ্যানালাইসিস করে একটি রিপোর্ট পরবর্তী বৈঠকে উপস্থাপনের সুপারিশ করা হয় ।
সভায় “ডেলিভারী রিসিভ ইনভয়েস (ডিআরআই) পরিমান অপেক্ষা মিটার রিডিং (ফ্লো-মিটার) এ অতিরিক্ত পরিমাণ জ্বালানি তেল সরবরাহ করায় কোম্পানীর ক্ষতি ৪ কোটি ৮১ লাখ ৮১ হাজার ২২৩ টাকা শিরোনামের আপত্তিতে অর্থআদায়ে প্রয়োজনীয় দ্রুত পদক্ষেপ নিতে বলা হয়। এর সাথে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের সুপারিশ করা হয়।
সভায় “মেসার্স মুক্তি সিএনজি ফিলিং স্টেশন কর্তৃক অবৈধভাবে গ্যাস কারচুপির জন্য দায়-কেনা ৪ কোটি ৮৩ লাখ ৬২ হাজার ১৭৪ টাকা অনাদায়জনিত ক্ষতি শিরোনামের আপত্তিতে একজন আইন কর্মকর্তা নিয়োগ করে দ্রুত অর্থ আদায় করার সুপারিশ করা হয়।
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও প্রাকৃতিক সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব, পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান, ডেপুটি কম্পট্রোলার এন্ড অডিটর জেনারেলসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও সংসদ সচিবালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

– বিএসএস

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।