পরিবেশবান্ধব কাঠের তৈরি ভবনের জনপ্রিয়তা বাড়ছে

ইট-পাথর নয়। কাঠ দিয়েই তৈরি করা হচ্ছে নতুন নতুন ভবন। তাতেও রয়েছে আধুনিকতার ছোঁয়া। বহুতল ভবনের ভেতরে এবং বাইরে ব্যবহার করা হচ্ছে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি। নিত্য প্রয়োজনীয় সব সুযোগ-সুবিধাই থাকছে কাঠের ভবনে। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো এটি ক্ষতিকর কার্বন ডাইঅক্সাইড গ্যাস ধরে রাখতে সক্ষম।

‘জিরো এমিশন বিল্ডিং’ নামে পরিচিত ফিনল্যান্ডের একটি কোম্পানি এমন ভবন নির্মাণ নিয়ে কাজ করছে, যা অতিরিক্ত কার্বন ডাইঅক্সাইড ধরে রাখতে পারে বলে তাদের দাবি। এ ধরণের স্থাপনা তৈরিতে ব্যবহার করা হয়েছে কাঠ ও কাঠের গুঁড়ি, যা সম্পূর্ণ পরিবেশ বান্ধব। শুধুমাত্র ভিত্তিপ্রস্তর ছাড়া ভবনটির পিলার, সিঁড়ি, দেয়াল সবকিছুই কাঠের। ফিনল্যান্ডের পাশাপাশি নরওয়ে, যুক্তরাষ্ট্র এবং ডেনমার্কেও এ ধরণের স্থাপনা বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

গবেষকরা বলছেন, প্রতি ঘনমিটার কাঠ এক টন পর্যন্ত কার্বন ডাইঅক্সাইড শোষণ করতে পারে। বাড়িঘর, অফিস নির্মাণে কাঠের অধিক ব্যবহার উল্লেখযোগ্যমাত্রায় কার্বন ধরে রাখতে সক্ষম বলে মত তাদের। তাই শিল্পায়নের এই যুগে গ্রিন হাউজ গ্যাস নিয়ন্ত্রণে এটিকে বিকল্প হিসেবে দেখছেন তারা। এতে একদিকে যেমন পরিবেশে মুক্ত কার্বন ডাইঅক্সাইডের পরিমাণ কমে আসবে, তেমনি সাশ্রয়ী হবে। শুধু তাই নয়, এর ভিতরে প্রতিধ্বনি তুলনামূলক কম হওয়ার কারণে শব্দ দূষণ কমবে। এছাড়াও ঋতুভেদে অভ্যন্তরিণ আর্দ্রতা ঠিক থাকায় এটি বেশ স্বাস্থ্যসম্মত বলে দাবি সংশ্লিষ্টদের।

এ অবস্থায় যে বন থেকে কাঠ বা কাঠের গুঁড়ি সংগ্রহ করা হবে, সেখানে পুনরায় গাছ লাগানো নিশ্চিত করতে হবে। যাতে করে পরিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব না পড়ে এবং পরিবেশবান্ধব বাড়িঘর নির্মাণও সম্ভব হয়।

তবে প্রশ্ন উঠেছে স্থাপনা তৈরিতে কাঠের ব্যবহারে সীমাবদ্ধতা নিয়ে। ধারণক্ষমতা, পচন বা অগ্নিকাণ্ডের ভয় এদের মধ্যে অন্যতম। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এক্ষেত্রে উন্নত প্রযুক্তির কাঠ ব্যবহার করা হয়, যা আগুন ও পচন রোধে সক্ষম। এছাড়াও এ ধরণের কাঠের ভবন কংক্রিটের চেয়েও মজবুত ও টেকসই।

ইতোমধ্যেই বিশ্বের অনেক গবেষণাগার, অফিস ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণে উন্নত প্রযুক্তির কাঠ ব্যবহার করা হচ্ছে। ইউরোপে বর্তমানে এ ধরণের বাড়িঘরের সংখ্যা ১০ শতাংশ হলেও আগামী ২০ বছরে তা ৮০ শতাংশে পৌঁছালে কোটি কোটি টন কার্বন ডাইঅক্সাইড কমানো সম্ভব বলে মত গবেষকদের।

DMCA.com Protection Status

সূত্র: সময় টিভি

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email