Skip to content

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট না হোক

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট না হোক

কামাল উদ্দিন মজুমদার

বাংলাদেশ ধর্মীয় স্বাধীনতা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। যেখানে সব ধর্ম-বর্ণ-গোত্র-সম্প্রদায়ের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করে আসছে। এই প্রক্রিয়ায়, বিভিন্ন ধর্মীয় মতবাদে বিশ্বাসী একদল লোক বাংলার অভিন্ন সংস্কৃতি ভাগ করে নিয়েছে। সবার মধ্যে ভ্রাতৃত্বের বন্ধন গড়ে উঠেছে। মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান, সকলেই ধর্ম, বর্ণ ও সম্প্রদায়ের মধ্যে সমস্ত পার্থক্য ভুলে স্বাধীনতার জন্য লড়াই করেছিলেন, সম্প্রীতির সাথে একসাথে বসবাসের উদ্দেশ্যে রক্তের সমুদ্রে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। পাকিস্তান রাষ্ট্রের অধীনে বাঙালিদের সমগ্র মুক্তি সংগ্রাম ছিল একটি ধর্মনিরপেক্ষ ও গণতান্ত্রিক জাতি গঠনের দিকে যেখানে ধর্মান্ধতা, মৌলবাদ এবং সহিংস চরমপন্থার কোন স্থান থাকবে না। কিন্তু সবচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক বিষয় হলো, স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর পেরিয়ে গেলেও আমরা দেখছি স্বার্থান্বেষী সাম্প্রদায়িক মহল অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রকে আক্রমণ করছে।

জাতিসংঘ বাংলাদেশকে একটি মধ্যপন্থী গণতান্ত্রিক মুসলিম দেশ হিসেবে শ্রেণিবদ্ধ করেছে। ২০২২ সালের আদমশুমারি অনুসারে বাংলাদেশে মুসলিম জনসংখ্যা ছিল ১৫০.৩৬ মিলিয়নেরও বেশি, যা দেশের জনসংখ্যার ৯১.০৪%। বাকিদের অধিকাংশই হিন্দু (৮ শতাংশ)। রাষ্ট্রধর্ম হিসেবে ইসলাম থাকা সত্ত্বেও ধর্মনিরপেক্ষতা সমুন্নত রয়েছে। বাংলাদেশের সংবিধান ধর্মনিরপেক্ষতাকে রাষ্ট্রীয় নীতি হিসেবে ঘোষণা করে এবং ধর্মের নামে রাজনীতি নিষিদ্ধ করে। সংবিধানে আরও বলা হয়েছে, ‘রাষ্ট্র হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান এবং অন্যান্য ধর্ম ও ধর্মের চর্চায় সমান মর্যাদা ও সমান অধিকার নিশ্চিত করবে। “ধর্মের স্বাধীনতা” সংবিধান দ্বারা গ্যারান্টিযুক্ত এর মৌলিক কাঠামো যেখানে এটি ধর্মীয় পার্থক্য নির্বিশেষে তার সমস্ত নাগরিকের সমান অধিকারের আহ্বান জানায় এবং এটি বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে ধর্মের ভিত্তিতে বৈষম্য নিষিদ্ধ করে।

এদেশের হিন্দু ও মুসলমানরা যুগ যুগ ধরে শান্তিপূর্ণভাবে সহাবস্থান করে আসছে, বাংলাদেশকে একটি অসাম্প্রদায়িক সমাজ ও রাষ্ট্রব্যবস্থায় রূপান্তরিত করেছে। বাংলাদেশ সরকার জঙ্গিবাদ ও সহিংস চরমপন্থার বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি অনুসরণ করেছে যা দেশে ধর্মীয় ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও সহিষ্ণুতাকে আরও বাড়িয়ে তুলেছে। বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব হিসেবে বিবেচিত দুর্গাপূজা উদযাপন দেশের প্রতিটি কোণে বিস্তৃত হয়েছে। বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ সূত্রে জানা যায়, ২০২২ সালে ঢাকার ২৪১টিসহ সারাদেশে ৩২ হাজার ১৬৮টি স্থায়ী ও অস্থায়ী মন্ডপে পূজা উদযাপিত হয়। ২০১৬ সালে ঢাকায় ২২৯টিসহ এ সংখ্যা ছিল ২৯ হাজার ৩৯৫ জন। হিন্দু, মুসলিম এবং অন্যান্য ধর্মীয় গোষ্ঠীর সদস্যরা যে সম্প্রীতি উপভোগ করছে তার কারণে বাংলাদেশে পূজা মণ্ডপের সংখ্যা বৃদ্ধি দৃশ্যমান হয়েছে।

যাইহোক, মনে হচ্ছেসাম্প্রতিক বছরগুলিতে একটি অশুভ শক্তি বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ হিসাবে বাংলাদেশের প্রশংসনীয় পরিচয়কে ক্ষুণ্ণ করার জন্য কাজ করছে। প্রতিবছর সংখ্যালঘুদের ধর্মীয় উৎসবকে সামনে রেখে বিক্ষিপ্ত সহিংসতা ও প্রতিমা ভাংচুরের খবর আমরা দেখি, যা বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করে। এই মুহুর্তে, আমাদের অবশ্যই স্বীকার করতে হবে যে ফেসবুক বা সোশ্যাল মিডিয়া সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ধারণা এবং কমিশনে একটি নতুন, অত্যন্ত বিপজ্জনক মাত্রা যুক্ত করেছে, যা নীতিনির্ধারকদের উদ্বিগ্ন করা উচিত। রামু, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও কুমিল্লায় দাঙ্গার সময় সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ার ক্ষেত্রে ভুল তথ্য প্রচারের ক্ষেত্রে ফেসবুকের সম্পৃক্ততা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও ক্ষতিকারক ভূমিকা পালন করেছিল।

বছরের পর বছর ধরে অপরাধীদের গুজব ছড়াতে এবং সংখ্যালঘু গোষ্ঠীর উপর সহিংস হামলা চালানোর জন্য জনতাকে একত্রিত করতে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলি ব্যবহার করেছে। ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে কক্সবাজারের রামুতে স্থানীয় বৌদ্ধ উত্তম কুমার বড়ুয়া নামে এক বৌদ্ধকে একটি পোড়া কুরআনের ছবিতে ট্যাগ করে অজ্ঞাত/ভুয়া ফেসবুক ব্যবহারকারী বৌদ্ধ মন্দিরগুলো পুড়িয়ে দেয়। এই পোস্টে ক্ষুব্ধ হয়ে একটি বৌদ্ধ মন্দিরে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় এবং বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের উপর আক্রমণ চালানো হয়। একইভাবে ২০২১ সালের ১৩ অক্টোবর সকালে কুমিল্লা জেলার একটি পূজা মন্ডপ থেকে হিন্দু দেবতার মূর্তির পাদদেশে কুরআনের কপি পাওয়ার খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর পবিত্র কুরআনের অবমাননার অভিযোগ ওঠে। এর প্রতিক্রিয়ায় দুর্গাপূজা উদযাপনের সময় জনতা সারা বাংলাদেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ছড়িয়ে দেয়।

ডানপন্থী বা বামপন্থী বা এমনকি সুপরিচিত ধর্মীয় গোষ্ঠীগুলিও এই জঘন্য আক্রমণকে সমর্থন করে না। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সমর্থনে সারা দেশের মানুষ রাস্তায় নেমে সাম্প্রদায়িক হামলার বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়। রাজনীতিবিদ, সুশীল সমাজের সদস্য, শিক্ষক, শিল্পী, লেখক ও ছাত্রকর্মীরা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে একটি স্পষ্ট বার্তা দিয়েছেন: বাংলাদেশে ধর্মান্ধতার কোনো স্থান নেই। এর চেয়েও বড় কথা, দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে ক্ষমতাসীন দল রাজধানীতে ‘সম্প্রীতি র্যালি’ শিরোনামে একটি র্যালি বের করে। এসব কিছুই এদেশের মানুষের ঐতিহ্যবাহী অসাম্প্রদায়িক চরিত্রকে স্পষ্টভাবে তুলে ধরে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, গুজব ও সহিংসতার একটি জটিল যোগসূত্ররয়েছে বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের জন্য, কারণসামাজিক মিডিয়া ব্যক্তিগত ও সামাজিক পর্যায়ে গুজব, অপপ্রচার এবং ভুল তথ্য ছড়ানোর একটি মূল প্লাটফর্মে পরিণত হয়েছে। ফেসবুকের মতো ইন্টারনেট যন্ত্রগুলি এই উদ্দেশ্যে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। উল্লেখ্য, ফেসবুকে মানুষ সবচেয়ে বেশি সক্রিয় থাকার শীর্ষ তিনটি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশনের (বিটিআরসি) তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে দেশে ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৫ কোটি ২৮ লাখ। দেশের সাম্প্রদায়িক শক্তি ও ধর্মান্ধরা এবং তাদের আন্তর্জাতিক পৃষ্ঠপোষকরা সবসময় গুজব ও ভুল তথ্য ছড়ানোর সুযোগ নিয়ে সাধারণ মানুষকে বিকৃত করেছে, যাদের সোশ্যাল মিডিয়া প্রকৌশল ও রাজনীতি সম্পর্কে কোনো ধারণা নেই।

যদিও শান্তি সব ধর্মের জন্য একটি অগ্রাধিকার, তবে অবশ্যই কিছু রাজনৈতিক সুবিধাবাদী রয়েছে যারা অন্য সবকিছুর উপরে স্বার্থকে প্রাধান্য দেয় এবং জনগণের ধর্মের আরাধনা থেকে লাভবান হওয়ার চেষ্টা করে। সংখ্যালঘু গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ ও বিদ্বেষ উস্কে দিয়ে পর্দার আড়ালে কাজ করা শকুনরা দেশে মুসলিম ও হিন্দুদের মধ্যে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়তে চায়। একটি বিভক্ত সমাজ একটি দুর্বল সমাজ যা অভ্যন্তরীণ এবং বাহ্যিক শত্রুদের চক্রান্তে প্রবণ। সুতরাং, তিনি স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠীগুলি সাম্প্রদায়িক অসন্তোষ, সামাজিক সংঘাতের বীজ বপন এবং সমাজকে অস্থিতিশীল করার অন্ধকার জলে মাছ ধরার চেষ্টা করে।

দুর্গাপূজা যখন ঘনিয়ে আসছে এবং দেশের হিন্দু সম্প্রদায় তাদের প্রিয় দেবীকে আলিঙ্গন করার জন্য নিজেদের প্রস্তুত করছে, তখন ধর্মীয় সংখ্যালঘু সংগঠন বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতারা দেশে সাম্প্রদায়িক সংঘাত নিয়ে উদ্বিগ্ন। আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রধান বলেন, আসন্ন দুর্গাপূজার সময় বা পরে দেশে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ছড়িয়ে পড়তে পারে। অতএব, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর উচিত পূর্বপরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশে সংখ্যালঘুনিপীড়ন সম্পর্কে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে ভুল তথ্য ছড়ানোর চেষ্টাকারী স্বার্থান্বেষী সাম্প্রদায়িক অপরাধীদের চিহ্নিত ও বিচারের জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালানো। সামাজিক সংহতির প্রচারের জন্য সরকার একা দায়ী নয়। এই সমস্যা সমাধানের জন্য, কেবল আইন-শৃঙ্খলার পরিবর্তে একটি সমগ্র সমাজের কৌশল প্রয়োজন। সাম্প্রদায়িক ও উদারনীতিবিরোধী চিন্তাধারা যাতে দলীয় রাজনীতিতে শিকড় বাঁধতে না পারে, তা নিশ্চিত করতে রাজনৈতিক দলগুলোকে অবশ্যই গুরুতর ও সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে।

সাম্প্রদায়িক শান্তির ওপর হামলা একটি জাতীয় নিরাপত্তার উদ্বেগ, যা কে হালকাভাবে দেখা উচিত নয় এবং দলমত নির্বিশেষে এই জঘন্য এজেন্ডার সাথে জড়িত প্রত্যেককে সেই অনুযায়ী মোকাবেলা করতে হবে। দেশপ্রেমিক বাংলাদেশীদের অবশ্যই এ ব্যাপারে তাদের চোখ ও কানকে সর্বদা সজাগ রাখতে হবে। সাম্প্রদায়িকতা, সন্ত্রাসবাদ ও মৌলবাদের বিরুদ্ধে তাদের সব ছদ্মবেশে কথা বলতে হবে।

লেখক: কলামিস্ট

প্রিয় পাঠক, লিখতে পারেন আপনিও! লেখা পাঠান এই ঠিকানায় –
sarabangla.muktomot@gmail.com

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত মতামত ও লেখার দায় লেখকের একান্তই নিজস্ব, এর সাথে সারাবাংলার সম্পাদকীয় নীতিমালা সম্পর্কিত নয়। সারাবাংলা ডটনেট সকল মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তবে মুক্তমতে প্রকাশিত লেখার দায় সারাবাংলার নয়।

সারাবাংলা/এসবিডিই



বার্তা সূত্র

সর্বাধিক পঠিত

সর্বশেষ সংবাদ