Skip to content

নভেম্বরে ৫ প্রতিবন্ধীসহ ৩৯ শিশু ধর্ষণের শিকার

নভেম্বরে ৫ প্রতিবন্ধীসহ ৩৯ শিশু ধর্ষণের শিকার

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: নভেম্বর মাসে ৩৯টি শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে, যাদের মধ্যে ৫ জন প্রতিবন্ধী ও ২ জন গৃহকর্মী। এছাড়া একজন প্রতিবন্ধীসহ ৬ শিশু গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। পাশাপাশি ধর্ষণ ও হত্যার শিকার ৩ শিশু-কিশোরী। মানবাধিকার সংস্কৃতি ফাউন্ডেশনের (এমএসএফ) নিজস্ব সংগৃহীত তথ্য ও গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের জরিপে এই তথ্য উঠে এসেছে।

সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি সুলতানা কামাল স্বাক্ষরিত নভেম্বর মাসের মানবাধিকার পরিস্থিতি মনিটরিং প্রতিবেদন অনুযায়ী গত মাসে মোট শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে ১৩৯টি। এর মধ্যে ধর্ষণ ও হত্যার শিকার  হওয়া ছাড়াও ধর্ষণচেষ্টার শিকার ৮ শিশু, যৌন হয়রানির শিকার ১১ শিশু ও শারীরিক নির্যাতনের শিকার ৭ শিশু।

নভেম্বর মাসে একজন প্রতিবন্ধী শিশুসহ ২৪ জন শিশু ও কিশোরী আত্মহত্যা করেছেন। অপহরণের শিকার হয়েছে ৫ জন শিশু অপরদিকে ৪ জন শিশু, কিশোরী ও নারী নিখোঁজ হয়েছেন।

এছাড়াও নভেম্বরে ৭ জনের অস্বাভাবিক মৃত্যুসহ মোট ১৭ জন শিশু ও কিশোরী হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন, যার মধ্যে ১ জন শিশু গৃহকর্মী রয়েছেন। ২ জন মৃত ও ৪ জন নবজাতক শিশুকে বিভিন্ন স্থানে পরিত্যক্ত অবস্থায় পাওয়া গেছে। এমএসএফ একে অমানবিক ও নিন্দনীয় ঘটনা বলে মন্তব্য করেছে।

গণমাধ্যম সূত্রে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী প্রতিশোধ, পারিবারিক বিরোধ, যৌতুক, প্রেমঘটিত ইত্যাদি কারণে এ হত্যাকাণ্ডগুলো সংঘটিত হয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

এমএসএফ কর্তৃক সংগৃহীত তথ্য অনুযায়ী নভেম্বর মাসে ১৩৯টি নারী ও ১৩৮টি শিশু নির্যাতনের ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। নারীর প্রতি সহিংসতার ঘটনার মধ্যে ধর্ষণের ঘটনা ২৩টি, গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন ৭ জন নারী, ধষর্ণের চেষ্টা করা হয়েছে ৭ জনের ক্ষেত্রে। যৌন হয়রানি ৬টি ও শারীরিক নির্যাতনের ৬টি ঘটনা ঘটেছে। অ্যাসিড নিক্ষেপে আক্রান্ত হয়েছে ১ জন নারী। ২ জন নারী নিখোঁজ হয়েছেন।

এছাড়াও নভেম্বর মাসে ৩১ জন খুন হয়েছে। গণমাধ্যম সূত্রে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী প্রতিশোধ, পারিবারিক বিরোধ, যৌতুক, প্রেমঘটিত জটিলতা ইত্যাদি কারণে এ হত্যাকাণ্ডগুলো সংঘটিত হয়।

এমএসএফ মনে করে, দেশে শিশু ও নারীদের প্রতি সহিংসতা, নির্যাতন, শ্লীলতাহানি, যৌন হয়রানি ও নিপীড়নের ঘটনা যে হারে ঘটে চলেছে তাতে করে সামাজিক সুরক্ষার পাশাপাশি রাষ্ট্রের দায়দায়িত্ব বিশেষ করে সমাজে অপরাধ প্রবণতা নিয়ন্ত্রণে সরকারের ভূমিকা আরও জোরদার করতে হবে।

প্রতিবেদনের পর্যবেক্ষণে এমএসএফ বলছে, দেশে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত ও এমএসএফ কর্তৃক সংগৃহিত তথ্য অনুযায়ী নভেম্বর মাসে দেশে নারী ও শিশুদের প্রতি সহিংসতা যেমন; ধর্ষণ, হত্যা ও পারিবারিক সহিংসতার ঘটনা বিগত মাসগুলোর তুলনায় চলতি মাসে কিছুটা কম হলেও তা এখনও উদ্বেগজনক। নারী ও শিশুদের প্রতি সহিংসতারোধে দেশে যথেষ্ট কঠোর আইন থাকা সত্বেও অপরাধ দমনে ও নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ভূমিকা দেখা যাচ্ছে না। বিচারহীনতা, বিচারে দীর্ঘসূত্রিতা ও অপরাধ প্রবণতা বেড়ে যাওয়ায় নারী ও শিশুদের প্রতি সহিংসতা ক্রমাগতভাবে বেড়েই চলেছে।

সারাবাংলা/আরএফ/



বার্তা সূত্র