Skip to content

তৃণমূলের ব্লক সভাপতি ও অঞ্চল সভাপতির গন্ডগোলে উত্তপ্ত কাঁথি, আহত ১০

তৃণমূলের ব্লক সভাপতি ও অঞ্চল সভাপতির গন্ডগোলে উত্তপ্ত কাঁথি, আহত ১০

কাঁথি-২ ব্লকের সারদা অঞ্চলের ফুলেশ্বর গ্রামে তৃণমূলের অঞ্চল সদস্যা অনুরাধা মাইতির স্বামী তরুণ সখা মাইতির সঙ্গে বুথ সভাপতি অরূপ কুমার মাইতির মধ্যে গন্ডগোল হয়।

কাঁথি থানা।

কাঁথি: পঞ্চায়েত ভোটের আগে ফের তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল প্রকাশ্যে এল। শনিবারই কাঁথি-১ ব্লকে দুলালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান, উপ-প্রধান সহ 8 তৃণমূলকর্মী ইস্তফা করেছিলেন। তৃণমূলের সংখ্যালঘু সেল-এর সভাপতি আনোয়ারউদ্দিনের নামে দুর্নীতির অভিযোগ তুলেই এঁরা একসঙ্গে পদত্যাগ করেন। সেই ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পরেই কাঁথি-২ ব্লকের তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল প্রকট হয়ে উঠল। এখানে আবার তৃণমূলের অঞ্চল সদস্যার সঙ্গে বুথ সভাপতির গন্ডগোলের জেরে হাতাহাতি পর্যন্ত হল। ঘটনায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে খবর, কাঁথি-২ ব্লকের সারদা অঞ্চলের ফুলেশ্বর গ্রামে তৃণমূলের অঞ্চল সদস্যা অনুরাধা মাইতির স্বামী তরুণ সখা মাইতির সঙ্গে বুথ সভাপতি অরূপ কুমার মাইতির মধ্যে গন্ডগোল হয়। অনুরাধা মাইতির লোকজন অরূপ কুমার মাইতির উপর হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ। যদিও অরূপ কুমার মাইতির লোকজন অনুরাধা মাইতির উদ্দেশ্যে কটূক্তি করেন বলে অভিযোগ তরুণ সখা মাইতির। ঘটনায় দু-পক্ষের কমপক্ষে ১০ জন গুরুতর আহত হয়েছেন। গাড়িও ভাঙচুর হয়েছে। দু-পক্ষের তরফেই থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে কাঁথি থানার পুলিশ। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, সারদা অঞ্চলের ফুলেশ্বর গ্রামের বুথ সভাপতি অরূপ কুমার মাইতি আবাস বাড়ি যোজনার প্রার্থীর নামের তালিকা কেটে দিয়েছেন বলে অভিযোগ। যদিও এই অভিযোগ মিথ্যা দাবি জানিয়ে অরূপ কুমার মাইতি বলেন, “আমি পেশায় একজন পার্ট টাইম শিক্ষক এবং বুথের সভাপতি। আমি যখন বিডিও অফিসে ঢুকতে যাই তখনই গ্রামেরই অঞ্চল সদস্যা অনুরাধা মাইতির স্বামী তরুণ সখা মাইতি আমাকে মারধর করেন‌। আমার ঘর-বাড়ি ভাঙচুর করেছেন, চারটি বাইকও ভাঙচুর করেন। আর কারণ নাকি আমি আবাস বাড়ি যোজনার প্রার্থীর নামের তালিকা কেটে দিয়েছি। কিন্তু, এ কথাটা সত্যি নয়।”

অন্যদিকে, বুথ সভাপতির অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সারদা অঞ্চলের অঞ্চল উত্তর ফুলেশ্বর অঞ্চলের সদস্যা অনুরাধা মাইতির স্বামী তরুণ সখা মাইতি। তাঁর পাল্টা অভিযোগ, “এমার্জেন্সি ব্লকে মিটিং ছিল। মিটিং শেষ করে ফেরার পথে বুথ সভাপতির লোকজন আমার স্ত্রী অনুরাধাকে লক্ষ্য করে কটুক্তি করে। এই নিয়ে গন্ডগোলের সূত্রপাত।” তবে কারণ যা-ই হোক, এই ঘটনায় শাসকদলের অন্তর্দ্বন্দ্ব ফের প্রকাশ্যে এসেছে। ঘটনায দু-পক্ষের ১০ জন আহতও হয়েছেন। বর্তমানে তাঁরা কাঁথি মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। গোটা ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

বার্তা সূত্র