Skip to content

জবিতে উপজাতি শিক্ষার্থীদের নবীনবরণ ও বিদায় সংবর্ধনা

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) উপজাতি শিক্ষার্থীদের ছাত্র সংগঠন ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্ট’স ইউনিয়নের আয়োজনে নবীন বরণ ও বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার (১৯ আগস্ট) বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে ‘এসো বনোফুলেরা, হাতে হাত মিলিয়ে শেকড়ের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে নবদিগন্তের গান গায়’ স্লোগান নিয়ে এ অনুষ্ঠান হয়।

অনুষ্ঠানে সাগর ত্রিপুরার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল্লাহ আল মাসুদ। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক হিসেবে আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের আদিবাসী শিক্ষার্থীদের মঙ্গল কামনা করি। আমি চাই তারা যেন সার্বিকভাবে এগিয়ে যায়। ঢাকার প্রাণকেন্দ্রে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান। দেশের বিভিন্ন দুর্গম অঞ্চল থেকে আদিবাসী শিক্ষার্থীরা এখানে পড়তে আসে। তারা অনেক সংগ্রাম করে। চাকরি ক্ষেত্রগুলোতে তাদের জায়গা নিশ্চিত করতে হবে।

বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. শাওলী মাহবুব।

অনুষ্ঠানে সংগঠনের সভাপতি সাগর ত্রিপুরা বলেন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে শতাধিক আদিবাসী শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছে। দেশে ৫৪টিরও বেশি আদিবাসী গোষ্ঠী আছে। দূরদূরান্ত থেকে আমরা পড়তে আসি। নতুন পরিবেশে মানিয়ে নেওয়া আমাদের জন্য কঠিন হয়ে পড়ে। বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার জন্য আমরা মাঝে মাঝে আন্দোলন করে থাকি। আমাদের আদিবাসী শিক্ষার্থীদের জন্য রাষ্ট্র থেকে প্রয়োজনীয় সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। বাংলাদেশে আমরা যেন স্বাভাবিকভাবে বসবাস করতে পারি, এটাই আমাদের সব শিক্ষার্থীর প্রত্যাশা।

আলোচনা সভা শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। যেখানে বাংলার পাশাপাশি আদিবাসীদের নিজস্ব সংস্কৃতির গান, কবিতা ও নৃত্য পরিবেশন করা হয়।

এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের আদিবাসী শিক্ষার্থীরা ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্য শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

এমএল/এসএসএইচ/



বার্তা সূত্র