চলতি সপ্তাহে শনাক্ত বেড়েছে ৯১ শতাংশ

গত সপ্তাহের তুলনায় চলতি সপ্তাহে করোনা রোগী শনাক্তের হার বেড়েছে ৯১ দশমিক ৪৯ শতাংশ। নমুনা পরীক্ষার হারও বেড়েছে।

শনিবার (২০ মার্চ) স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা যায়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত সপ্তাহে (৭ মার্চ থেকে ১৩ মার্চ) নমুনা পরীক্ষা হয়েছিল এক লাখ ১৬ হাজার ২৩২টি। ছয় হাজার ৫১২ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়। একই সময়ে আট হাজার ৩৪৪ জন রোগী সুস্থ হয়। আর মৃত্যু হয় ৭৬ জনের।

অপরদিকে চলতি সপ্তাহে (১৪ মার্চ থেকে ২০ মার্চ) নমুনা পরীক্ষা হয়েছে এক লাখ ৩৯ হাজার ৬৬৬টি। যার মধ্যে ১২ হাজার ৭৪০ জনের করোনা শনাক্ত হয়। আর একই সময়ে মারা যান ১৪১ জন। সুস্থ হন ১০ হাজার ৪০৮ জন। গত সপ্তাহের তুলনায় চলতি সপ্তাহে রোগী শনাক্তের হার বেড়েছে ৯১ দশমিক ৪৯ শতাংশ।

স্বাস্থ্য অধিদফতর আরও জানায়, দেশের সরকারি ও বেসরকারি ২১৯টি পরীক্ষাগারে করোনার নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে। তার মধ্যে আরটি-পিসিআরের মাধ্যমে পরীক্ষা হচ্ছে ১১৮টি পরীক্ষাগারে, জিন-এক্সপার্ট মেশিনের মাধ্যমে পরীক্ষা হচ্ছে ২৯টি পরীক্ষাগারে। আর র‌্যাপিড অ্যান্টিজেনের মাধ্যমে পরীক্ষা হচ্ছে ৭২টি পরীক্ষাগারে।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১৯ হাজার ৯২৯টি আর নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১৯ হাজার ৯০০টি। দেশে এখন পর্যন্ত করোনার মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৪৩ লাখ ৮৮ হাজার ১১টি। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৩৩ লাখ ৪৬ হাজার ৮১৪টি আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ১০ লাখ ৪১ হাজার ১৯৭টি।

গত ২৪ ঘণ্টায় রোগী শনাক্তের হার নয় দশমিক ৩৯ শতাংশ আর এখন পর্যন্ত করোনাতে শনাক্তের হার ১২ দশমিক ৯৬ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯১ দশমিক ৫৬ শতাংশ আর শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার এক দশমিক ৫২ শতাংশ।

রাজধানীসহ সারাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ১ হাজার ৮৬৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়। একই সময়ে মারা যান ২৬ জন। এ নিয়ে দেশে মোট করোনা শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৫ লাখ ৬৮ হাজার ৭০৬ জন। আর মোট মৃত্যু হয়েছে ৮ হাজার ৬৬৮ জনের।

গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এরপর ১৮ মার্চ প্রথম করোনা রোগীর মৃত্যু হয়।

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email