Skip to content

কোস্ট গার্ডকে আধুনিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলা হবে—প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

কোস্ট গার্ডকে আধুনিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলা হবে—প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ক্রমবর্ধমান দায়িত্ব পালনে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ডকে একটি আধুনিক ও সময়োপযোগী বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলা হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, “ভবিষ্যতে আমাদের দায়িত্ব আরও বাড়বে। আমাদের নিজস্ব চিন্তা–ভাবনা রয়েছে যে, আমরা এই কোস্ট গার্ডকে একটি আধুনিক এবং সময়োপযোগী হিসেবে গড়ে তুলব”।

বুধবার (২১ জুন) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে চট্টগ্রামের কোস্ট গার্ড পতেঙ্গা বার্থে স্থানীয়ভাবে তৈরি বাংলাদেশ কোস্ট গার্ডের পাঁচটি অত্যাধুনিক জাহাজের কমিশনিং অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, তাঁর সরকার ২০০৯ সাল থেকে গত ১৪ বছরে কোস্ট গার্ড বহরে বিভিন্ন আকারের ১৫৪টি আধুনিক ও দ্রুতগতির জাহাজ ও নৌযান যুক্ত করেছে।

শেখ হাসিনা বলেন, “নিজস্ব ইয়ার্ডে জাহাজ নির্মাণ করা হলে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড স্বয়ংসম্পূর্ণতা বা সক্ষমতার নতুন উচ্চতায় উন্নীত হবে”।

শেখ হাসিনা বলেন, জাতীয় স্বার্থ ও নিরাপত্তা এবং জনগণের জানমালের সুরক্ষার স্বার্থে গভীর সমুদ্রে যোগাযোগ ব্যবস্থায় বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনার লক্ষ্যে কোস্ট গার্ড ও বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ১–এর মধ্যে ডিজিটাল সংযোগ স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এ ছাড়া ভাসানচরে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ডে ড্রোন প্রযুক্তি সংযোজন করা হয়েছে।

কোস্ট গার্ডের জন্য নতুন জাহাজগুলো হলো—‘বিসিজিএস অপূর্ব বাংলা’ ও ‘বিসিজিএস জয় বাংলা’ নামে দুটি টহল জাহাজ। ‘বিসিজিটি প্রত্যয়’ ও ‘বিসিজিটি প্রমত্ত’ নামে দুটি টাগবোট এবং ‘বিসিজিএফসি শক্তি’ নামে একটি ভাসমান ক্রেন।

নারায়ণগঞ্জে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ডকইয়ার্ড অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেডের তৈরি দুটি টহল জাহাজ এবং খুলনা শিপইয়ার্ড দুটি টাগবোট ও ভাসমান ক্রেনটি তৈরি করেছে।

নতুন জাহাজগুলোতে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি, সেন্সর এবং নজরদারি রাডার সংযুক্ত রয়েছে। উপকূলীয় টহল জাহাজে তিনটি স্বয়ংক্রিয় কামান রয়েছে, যা নিজেদের সুরক্ষা এবং অপারেশনাল কার্যক্রম পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

জাহাজগুলোর নজরদারি ক্ষমতা ৯৬ নটিক্যাল মাইল এবং কামানের পরিসীমা চার কিলোমিটার। জাহাজগুলো এই পরিসীমার মধ্যে অন্য জাহাজ, অপরাধী বা শত্রুদের মতো যেকোনো বিষয় শনাক্ত করতে সক্ষম এবং কামানগুলো কোস্ট গার্ডকে অপারেশনাল কার্যক্রম মসৃণভাবে পরিচালনা করতে সহায়তা করবে।

কমিশনিং অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ও জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তাফিজুর রহমান বক্তব্য দেন। স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলাদেশ কোস্ট গার্ডের মহাপরিচালক রিয়ার অ্যাডমিরাল আশরাফুল হক চৌধুরী।

সূত্র: ভয়েজ অব আমেরিকা