কৃষিপণ্যের উৎপাদন খরচ বেঁধে দিলো সরকার

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার ঘিরে অসাধু সিন্ডিকেটের তৎপরতা বন্ধ এবং কৃষকপর্যায়ে ন্যায্যমূল্য নিশ্চিতে এবার কঠোর অবস্থানে সরকার। দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ১৪টি কৃষিপণ্য উৎপাদনের খরচ বেঁধে দিয়েছে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর। শুধু তাই নয়, চূড়ান্ত করা হয়েছে পণ্য বিপণন নীতিমালাও। যা অনুমোদনের জন্য এখন রয়েছে কৃষি মন্ত্রণালয়ে। 

সময় সংবাদকে দেয়া সাক্ষাৎকারে এসব তথ্য দেন কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ইউসুফ। তিনি বলছেন, মূলত চারটি বিষয়কে গুরুত্ব দিয়েই এমন উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। প্রতিটি কৃষিপণ্যের কেজিপ্রতি উৎপাদনের সর্বোচ্চ খরচ নির্ধারণে বিবেচনায় আনা হয়েছে বর্গাজমির খরচ, কৃষি ঋণের সুদ, যন্ত্রপাতি আর সার বীজের ব্যয়, কৃষকের পারিশ্রমিক এবং পণ্য পরিবহন খরচ।

এমন উদ্যোগে সাধুবাদ জানালেও আবাদ মৌসুমে কৃষি উপকরণের দাম নিয়ে অরাজকতা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন কৃষক আর কৃষি বাণিজ্য ও বিপণন বিশেষজ্ঞরা।

অর্থনীতির নিয়মনীতি বলে, পণ্যের চাহিদা আর যোগানের উপরই নির্ধারিত হয় বাজারমূল্য। কিন্তু তৃণমূল পর্যায়ে নেই নিয়ম কানুন মানার বালাই। এ কারণে ভরা মৌসুমেও নিত্যপণ্যের বাজার নিয়ে অসন্তোষ, ভোক্তা কিংবা কৃষক দু’পক্ষেরই। এবার এ অবস্থা পরিবর্তনেরই কঠোর ইঙ্গিত দিলো সরকার। যৌক্তিক বাজারমূল্য নির্ধারণে এবার বেঁধে দেয়া হয়েছে ১৪টি পণ্য উৎপাদনের সর্বোচ্চ খরচ। প্রতিকেজি পেঁয়াজ আবাদে সর্বোচ্চ খরচ ধরা হয়েছে ১৯ টাকা ২৪ পয়সা, রসুন ৩০ টাকা ৮৭ পয়সা, মরিচ ১৯ টাকা, সরিষা ৩৩টাকা ৮৪ পয়সা, মসুর ডাল ৪০ টাকা ৩২ পয়সা, ফুলকপি ৭টাকা ৪২ পয়সা, বাঁধাকপি ৭টাকা ৭ পয়সা, শিম ১০টাকা ১৩ পয়সা, টমেটো ৮টাকা ২১ পয়সা, শসা ৮টাকা ৪ পয়সা, বেগুন ৯টাকা ২০ পয়সা, লাউ ৫টাকা ৩৩ পয়সা, কাঁচাপেপে ৪টাকা ২৭ পয়সা, এবং ঢেঁড়স ১০টাকা ৭৯ পয়সা। 

এ উদ্যোগকে ইতিবাচক বললেও, চাষাবাদের সময় কৃষি উপকরণের দামে লাগাম টানতে না পারলে সুফল আসবে না বলেই মনে করছেন কৃষকরা। আর কৃষি বিপণন বিশেষজ্ঞর বলছেন, শুধু উপকরণের দাম নয়, এ উদ্যোগ বাস্তবায়ন কার্যকর উৎপাদনমুখী বাজার ব্যবস্থাপনাও দরকার।

যদিও, কৃষি বিপণন অধিদপ্তর বলছে, উৎপাদন খরচ অনুযায়ী দাম না পাওয়ায় চাষাবাদে আগ্রহ হারাচ্ছেন কৃষক। মহাপরিচালকের দাবি, খরচ বেঁধে দেয়ায় এবার কমবে মাঠ ও বাজারকেন্দ্রিক সব ধরণের অসন্তোষ।

পাশাপাশি, পর্যায়ক্রমে দুটি আবাদ মৌসুমে সব ধরণের নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের উৎপাদন খরচ বেঁধে দেয়ার সঙ্গে পণ্য বিক্রির ক্ষেত্রেও সর্বোচ্চ দাম নির্ধারণে সরকারের নানামুখী তৎপরতার কথাও জানিয়েছে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর।

DMCA.com Protection Status

সূত্র: সময় টিভি


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।