কাঁঠালে ওজন বাড়ে না, বিচি খেতে সতর্ক হোন

জাতীয় ফল কাঁঠাল পুষ্টিগুণে ভরপুর। মানব দেহে যেসব পুষ্টির প্রয়োজন তার প্রায় সবই আছে কাঁঠালের মধ্যে। পাকা কাঁঠালের সুঘ্রাণ ও স্বাদ অতুলনীয়। তবে কাঁচা কাঁঠালের তরকারিও কিন্তু স্বাদে আর পুষ্টিগুণে কম না। কাঁচা কাঁঠাল রোগব্যাধি উপশমে যেমন কার্যকর তেমনই শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়িয়ে দেয় অনেক গুণ। কাঁঠাল খেলে ওজন বেড়ে যাবে, এটা ভুল ধারণা। তাই শরীরের পুষ্টির অভাব পূরণ করতে কাঁঠাল খেতে পারেন।

 

কাঁঠালের পুষ্টিমান

চুল ভালো রাখে

ওজন বাড়ার শঙ্কা নেই

কাঁঠালে কোলেস্টেরলের মাত্রা শূন্য। তাই কাঁঠাল স্বাস্থ্যের জন্য নিরাপদ। যেকোনো বয়সের মানুষ এটা খেতে পারেন। কাঁঠাল শক্তির ভালো উৎস। এতে আছে ভালো শর্করা। কাঁঠালে চর্বির পরিমাণ খুব কম থাকায় বেশি খেলেও ওজন বাড়ার কোনো শঙ্কা নেই।

বলিরেখা পড়তে বাধা দেয়

কাঁঠাল মুখে বলিরেখা পড়তে বাধা দেয়। এটি ত্বকের জন্য ভালো। কাঁঠালের মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রোগ সৃষ্টিকারী ফ্রি র‌্যাডিকেলস বা মুক্ত উপাদানের বিরুদ্ধে লড়াই করে। প্রচুর ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম থাকায় হাড়ের ক্ষয় ঠেকাতে পারে কাঁঠাল।

 

কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

কাঁঠাল পেটের বিভিন্ন অসুখ-বিসুখ থেকে মুক্তি দিতে পারে। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে এবং অন্ত্রের নড়াচড়া বাড়াতে সাহায্য করে এটি। এতে যে আঁশ থাকে, তা কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। পেটের অম্লতা ও আলসার ঠেকাতেও কাঁঠাল খেতে পারেন।

মাংসপেশি গঠনে ভূমিকা রাখে

কাঁঠালের বিচিতে থাকা এন্টি অক্সিডেন্টগুলো ক্যান্সার প্রতিরোধী এবং বার্ধক্যের প্রভাব সৃষ্টিকারি উপাদানগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করে। ফাইবার ও কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেটের কারণে এর গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম। ফলে এটি ওজন কম বাড়িয়েই যোগাতে পারে অনেক এনার্জি। এতে যে প্রোটিন আছে, তা মাংসপেশি গঠনে ভূমিকা রাখে। এছাড়া কাঁঠালবিচির জীবাণুনাশক গুণও রয়েছে।

অতিরিক্ত খাবেন না

কাঁঠালে বিচিতে আঁশ থাকে তাই বেশি খেলে হজমে গোলযোগ হতে পারে। যাদের ডায়াবেটিস আছে, তাঁদের কাঁঠাল খাওয়ায় খানিকটা বিধিনিষেধ আছে। কিডনি রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে যাদের রক্তে পটাশিয়ামের মাত্রা বেশি, তাদের কাঁঠাল না খাওয়াই ভালো।

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email