করোনার আফ্রিকা-ব্রাজিলের স্ট্রেইনও বাংলাদেশে

করোনা সংক্রমণ বাড়ার উদ্বেগের মধ্যেই বাংলাদেশে আরো দুটি নতুন স্ট্রেইন শনাক্তের খবর এসেছে। এতে নতুন করে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। বৃটেনে শনাক্ত করোনার অতিসংক্রমণশীল ধরণটি বাংলাদেশে এসেছিল গত জানুয়ারিতে। একই সময়ে দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত হওয়া দ্রুত সংক্রমণশীল ধরণটিও বাংলাদেশে প্রবেশ করে। এছাড়া ব্রাজিলে শনাক্ত হওয়া নতুন ধরণসহ করোনার আরো অন্তত ১২ টি স্ট্রেইন বাংলাদেশে ধরা পড়েছে।

গ্লোবাল জিনোম সিকোয়েন্সিং ডেটাবেস-জিআইএসএআইডি সম্প্রতি এ তথ্য প্রকাশ করে জানিয়েছে, বাংলাদেশে প্রথম দক্ষিণ আফ্রিকার স্ট্রেইনে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয় গত ২৪শে জানুয়ারি। এই স্ট্রেইনটি যুক্তরাজ্য এবং যুক্তরাষ্ট্রেও পাওয়া গেছে।বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বৃটেনের পর দক্ষিণ আফ্রিকার স্ট্রেইনটি যদি দেশে এসে থাকে তাহলে তা খুবই উদ্বেগজনক। কারণ এই স্ট্রেইনটি অন্যান্য স্ট্রেইনের তুলনায় অনেক বেশি দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে।

ওদিকে হঠাৎ করে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় ঢাকার কোভিড ডেডিকেটেড ১০ টি সরকারি হাসপাতালে আইসিইউ শয্যা ফুরিয়ে আসছে। দুটি হাসপাতালের সবক’টি শয্যায় ইতোমধ্যে রোগী ভর্তি আছে। ৬ টি হাসপাতালে শয্যা খালি আছে মাত্র ২৭টি। এই ১০টি হাসপাতালের ৮টিতে আইসিইউ শয্যা আছে ১১৭টি। দুটিতে কোন আইসিইউ সুবিধা নেই।সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় করোনা পরীক্ষা করাতে আসা মানুষের সংখ্যাও বাড়ছে। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ২০ হাজার ৯৩৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে ১ হাজার ৭১৯ জনের শরীরে সংক্রমণ ধরা পড়ে। এই সময়ে মৃত্যু হয়েছে ২৬ জনের।

সংক্রমণ পরিস্থিতির অবনতি হলেও বিসিএস পরীক্ষা এবং বই মেলার আয়োজন বাতিল করা হয়নি। ১৯শে মার্চ প্রায় পৌনে ৫ লাখ সরকারি চাকরি প্রার্থী বিসিএস পরীক্ষায় বসবেন। ১৮ই মার্চ বাংলা একাডেমির বই মেলা শুরুর কথা রয়েছে। সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, পরিস্থিতি আরো খারাপ হলে বইমেলার কার্যক্রম স্থগিত করে দেয়া হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ বি এম খুরশীদ আলম বলেছেন, সংক্রমণ বাড়লেও কঠোর লকডাউনের কোন চিন্তা নেই। রেঁস্তোরা, গণপরিবহন ও পর্যটন কেন্দ্রে জনসমাগম কমানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

সূত্র: ভয়েজ অব আমেরিকা

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email