Skip to content

আন্দোলন সঠিক পথে চলছে; বাংলাদেশে ভোটার ছাড়া নির্বাচন হবে না: মির্জা ফখরুল

আন্দোলন সঠিক পথে চলছে; বাংলাদেশে ভোটার ছাড়া নির্বাচন হবে না: মির্জা ফখরুল

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন যে তাদের আন্দোলন সঠিক পথে চলছে; আর বাংলাদেশে এবার ভোটার ছাড়া কোনো নির্বাচন হবে না। তিনি বলেন, “পশ্চিমা দেশগুলোর অঙ্গীকার, চলমান আন্দোলন পরিচালনায় আমাদের দলের নেতা-কর্মীদের উৎসাহিত করেছে।” রবিবার (১৫ অক্টোবর) এক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন।

রাজধানী ঢাকার একটি হোটেলে, বাংলাদেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে স্থানীয়-আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের ভূমিকা এবং এখনই আমাদের করণীয় শীর্ষক এই সেমিনারের আয়োজন করে বিএনপি। দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেন, “এটা অনস্বীকার্য যে, গণতন্ত্রের প্রতি পশ্চিমা দেশগুলোর অঙ্গীকার, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনের জন্য চলমান আন্দোলন পরিচালনায় আমাদের নেতা-কর্মীদের উৎসাহিত করেছে।”

তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী গতকাল (১৪ অক্টোবর) যা বলেছেন, তার মানে হলো; তোরা যে যা বলিস ভাই আমার সোনার হরিণ চাই। তার মানে আমেরিকা, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, রাজনৈতিক দলগুলো যাই বলুক না কেন, তিনি ক্ষমতায় থাকতে চান।”

মির্জা ফখরুল বলেন, “ক্ষমতা দখল ও রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে বেআইনিভাবে ক্ষমতায় থাকার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একই কায়দায় আগামী নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। রাজনৈতিক সংকটের পেছনে এটাই কারণ।”

বিএনপি মহাসচিব আরো বলেন, “শেখ হাসিনা যদি ভোটার ছাড়া আগামী নির্বাচন করতে চান, তাহলে এবার তা হবে না। আপনি ২০১৪ ও ২০১৮ সালের মতো নির্বাচন ২০২৪ সালে করতে পারবেন না। এটা এবার সম্ভব হবে না, কারণ জনগণ এবার আপনাকে প্রতিহত করার জন্য ঘুরে দাঁড়িয়েছে।”

মির্জা ফখরুল বলেন, “গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে যারা একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ করেছিল, তারাই বাংলাদেশকে গণতান্ত্রিক দেশে পরিণত করতে আবার আন্দোলন শুরু করেছে। একটি দায়িত্বশীল গণতান্ত্রিক দল হিসেবে, আমরা গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য সমস্ত গণতান্ত্রিক ও দেশপ্রেমিক শক্তির সঙ্গে সংগ্রাম শুরু করছি।”

বিএনপি মহাসচিব আরো বলেন, “সবাইকে মনে রাখতে হবে, একটি গণতান্ত্রিক শক্তির পক্ষে ফ্যাসিবাদী শাসনের বিরুদ্ধে লড়াই করা সহজ কাজ নয়। গত এক বছরে ২২ জন সাধারণ মানুষ-সহ এই সংগ্রামে আমাদের অনেক নেতা-কর্মী প্রাণ হারিয়েছেন; এক হাজারের বেশি মানুষ বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন।”

তিনি বলেন, “সরকারের দমন-পদক্ষেপের অংশ হিসেবে, প্রায় ৪৫ লাখ বিরোধী দলীয় নেতা-কর্মীকে মিথ্যা মামলায় জড়ানো হয়েছে।” গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরে পেতে এদেশের মানুষ সব ধরনের ত্যাগ স্বীকার করতে প্রস্তুত বলে উল্লেখ করেন মির্জা ফখরুল।

তিনি বলেন, “আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়া বন্দি অবস্থায় খুব অসুস্থ হলেও কখনো মাথা নত করেননি। একইভাবে, আমাদের সব নেতা-কর্মী তাদের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। সুতরাং, আমি বিশ্বাস করি আমাদের সংগ্রাম অবশ্যই সফল হবে এবং আমরা গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হবো।”

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেন, “আমাদের বিশ্বাস করতে হবে যে পশ্চিমা বিশ্ব গণতন্ত্রের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। তাদের অঙ্গীকার ও চেতনা আমাদের সাহস দেয় এবং এগিয়ে যেতে সহায়তা করে। এটা অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই। একই সঙ্গে আমাদের এটাও মনে রাখতে হবে যে, আমরা যারা সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছি, ভবিষ্যতে আন্দোলনকে আরো শক্তিশালী করার জন্য, আমাদের আরো দৃঢ় সংকল্প নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে।”

সূত্র: ভয়েজ অব আমেরিকা