Skip to content

অনিয়মের অভিযোগে জয়পুরহাটে বিচারককে প্রত্যাহার

অনিয়মের অভিযোগে জয়পুরহাটে বিচারককে প্রত্যাহার

বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে জয়পুরহাট নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্র্যাইব্যুনালের বিচারক রুস্তম আলীকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। প্রত্যাহারের পর তাকে আইন ও বিচার বিভাগে সংযুক্ত করা হয়েছে।


বুধবার রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বিচার শাখা-৩ এর উপসচিব শেখ গোলাম মাহবুব স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়।


এতে বলা হয়, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের সাথে পরামর্শক্রমে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল, জয়পুরহাট এর বিচারক (জেলা ও দায়রা জজ) মো. রুস্তম আলীকে বর্তমান কর্মস্থল হতে প্রত্যাহার পূর্বক আইন ও বিচার বিভাগে সংযুক্ত করা হলো। জনস্বার্থে এ আদেশ জারি করা হলো।


এদিকে তার জায়গায় মো. নূর ইসলামকে দায়িত্বভার অর্পণ করে অনতিবিলম্বে বদলিকৃত কর্মস্থলে যোগদানের জন্য বলা হয়েছে।


জেলা আইনজীবি সমিতির সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. শাহনূর রহমান শাহীন জানান, আদালতের আইনজীবিদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ, দেরিতে এজলাসে আসা ও অর্থের বিনিময়ে চাঞ্চল্যকর মামলার আসামিদের জামিন ও খালাস দেয়াসহ একাধিক অভিযোগে জয়পুরহাট জেলা আইনজীবী সমিতি বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছিলো।


জানা গেছে, গত ১০ নভেম্বর আইনজীবী সমিতির বার্ষিক সাধারণ সভা শেষে সমিতির আইজীবীরা তাকে আগামী ২৮ নভেম্বরের মধ্যে আদালত ত্যাগ করতে আল্টিমেটাম দেয়। এমনকি তিনি আদালত ত্যাগ না করায় ২৯ নভেম্বর আদালত বর্জনের ঘোষণাও দেন আইনজীবীরা। ওই সময় বিচারকের বিরুদ্ধে এসব অনিয়ম বিচারপতি, আইনমন্ত্রী, আইনসচিব, দুদকসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পরে বুধবার তাকে প্রত্যাহার করা হয়।


ওই কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এ্যাড. নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডল পিপি, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. শাহনূর রহমান শাহীন, বিজ্ঞ জিপি এ্যাড. মোমিন আহম্মেদ চৌধুরী, নারী ও শিশু দমন ট্রাইব্যুনালের স্পেশাল পিপি এ্যাড. ফিরোজা চৌধুরীসহ অন্যান্য আইনজীবীরা।

বাংলাদেশ জার্নাল/ওএফ



বার্তা সূত্র